| news | Page 3
Home Blog Page 3

৯ মিনিটের অন্তরঙ্গ,কাল হয়ে দাড়িয়েছে জীবনের: বুবলী

0

শাকিব খান মানেই আলোচনা। ঢাকাই ইন্ডাস্ট্রির এই শীর্ষ তারকাকে নিয়ে সম্প্রতি গুঞ্জন রটেছে ঢালিউড পাড়ায়। সম্প্রতি ‘বীর’ সিনেমার জন্য ওজন বাড়াতে হয় বুবলীকে।

সেই ছবি প্রকাশের পর থেকে গুঞ্জন উঠেছে অ’ন্তঃসত্ত্বা বুবলী।আর এ নিয়ে শাকিবের স’ঙ্গে জড়িয়ে শুরু হয়েছে বিভিন্ন সমালোচনা। এ নিয়ে সম্প্রতি মুখ খুলেছেন চিত্রনায়িকা বুবলী। তিনি বি’ষয়টি সবার কাছে তুলে ধরেছেন। এবার তা নিয়ে মুখ খুললেন শাকিব খান।

শাকিব বলেন, ‘আর তো চুপ থাকা যায় না, এত গুঞ্জন আর কানাঘুষা না করে যদি সাহস থাকে সামনে এসে প্রমাণ দেখাক। দু-দিন পরপর আমাকে ঘিরে নানা অ’পপ্রচার চা’লিয়ে আমার তারকা ইমেজ ন’ষ্ট করার চেষ্টা চালাচ্ছে।আমাকে নিঃশেষ করার ষ’ড়যন্ত্র অনেক হয়েছে, আর

কত? বুবলীর অ’ন্তঃসত্ত্বা ও আড়ালে চলে যাওয়া প্রস’ঙ্গে শাকিব খান বলেন, ‘আপনারা আমাকে কেন জিজ্ঞেস করছেন, বুবলীর কাছে যান, সেই আপনাদের ভালো বলতে পারবে।

সে তো নিজের বাসায়ই আছে। অপু বিশ্বাসের স’ঙ্গে ঘটে যাওয়া ঘ’টনার স’ঙ্গে বুবলীর এই বি’ষয়টিও নতুন করে কোনো ঘ’টনার জ’ন্ম দেবে কি-না, এ প্রস’ঙ্গে শাকিব আরো বলেন,

‘বুবলী শিক্ষিত মে’য়ে, তার পরিবারও শিক্ষিত এবং সম্ভ্রান্ত।সে অপুর মতো কোনো ভু’ল করবে না। বুবলী আমার শুধুই বন্ধু ও সহকর্মী। আসলে আমার তারকা ইমেজ যখনই শুরু হয়েছে তখন থেকেই কিছু ঈর্ষা পরায়ণ মানুষ আমার ক্যারিয়ার ধ্বং’স করার জন্য ওঠে পড়ে লেগেছে।

বারবার আমাকে ঘিরে নানা ইস্যু তৈরি করে ক্যারিয়ার ধ্বং’স করতে চায়। যা কোনোদিন পারেনি, পারবেও না। অপু বিশ্বাসের স’ঙ্গে আমার সম্প’র্ক একটি আবেগতাড়িত দু’র্ঘ’টনা ছাড়া আর কিছুই ছিল না।

একস’ঙ্গে কাজ করতে গিয়ে তাকে চিনতে ভু’ল করেছিলাম, আর ভু’ল করতে চাই না। এখন আমার ধ্যান-জ্ঞান ফিল্ম ক্যারিয়ার এবং সুন্দর সাজানো গোছানো একটি সংসার।

অনেক ক’ষ্টে নিজের দু’র্বলতা নিয়ে প্রকাশ্যে মুখ খুললেন অভিনেত্রী রচনা ব্যানার্জি

0

বাংলার দিদি নং ১ তিনি। ৪৬ বছর বয়সেও সে একইরকম সুন্দরী। তাকে দেখে বয়স বোঝার উপায় নেই কোনো। তিনি হলেন রচনা ব্যানার্জি। নিজের অভিনয় দক্ষ’তার মাধ্যমে একসময় তিনি টলিউডে রাজত্ব করেছিলেন।

বলিউডেও রেখেছিলেন নিজের অভিনয় দক্ষ’তার ছাপ। ২০০০সাল থেকে মিঠুন, চিরঞ্জিত, প্রসেনজিৎ-এর সাথে জুটি বেঁ’ধে

দর্শকদের উপহার দিয়েছেন একের পর এক হিট ছবি। টলিউড থেকে বলিউড সব জায়গাতেই ছিল তার জয়জয়কার। বলিউডে অমিতাভ বচ্চনের সাথেও তাকে অভিনয় করতে দেখা গেছে।

শুধু টলিউড বলিউডেই নয় তিনি তামিল, তেলেগু সিনেমাতেও অভিনয় করে দর্শকদের মন জয় করে নিয়েছেন তিনি।

এরকমই এক জনপ্রিয় অভিনেত্রী হঠাৎ করেই নিজেকে সরিয়ে নিলেন বড় পর্দার সামনে থেকে। ২০১০ সালে যখন তিনি খ্যাতির শিখরে ছিলেন তখনই হঠাৎ করে তিনি চলে যান সকলের চোখের আড়ালে।

তবে তিনি এক সংবাদমাধ্যমকে জানান নিজের ছেলেকে সময় দেওয়ার জন্যই সরিয়ে নিয়েছেন নিজেকে। দক্ষিণ কোলকাতায় ছেলে প্রমীলকে নিয়ে থাকেন তিনি রয়েছেন পরিবারের অন্য সদস্যরাও। তবে তিনি এখন বাংলার প্রতিটি ঘরের দিদি নং1

হয়ে উঠেছেন। প্রতিদিন বিকেল ৫ টায় তাকে দেখা যায় বাংলার প্রতিটা ঘরের ড্রয়িং রুমে। তবে টানা দশ বছর ধরে এই শো করতে করতে তিনি তো হাঁপিয়ে যাননি বরং পেয়েছেন বেঁচে থাকার অক্সিজেন।

তিনি স্যোশাল মিডিয়াতেও যথেষ্ট অ্যাক্টিভ।কিছুদিন আগেই কোভ্যাক্সিন নিয়েছেন তিনি আর সেই মুহুর্তটা লেন্সব’ন্দি করেছিলেন তিনি। গুড বাই কোভিড ১৯ ব্যানারের সামনে ছবি তুলেছিলেন তিনি।

তবে ভ্যাক্সিন নেওয়ার পর একটু জ্বর হলেও এখন সুস্থ আছেন তিনি। ক’রোনা আবহে কিছুদিন ছুটি নিলেও তারপর স্বমহিমায় ফিরেছিলেন আবার দিদি নং ১-এর সেটে।

৪৬ বছরে পা দিলেও অভিনেত্রীর গ্লামার কমেনি এক ফোঁটাও। সবসময় স্ট্রিক্ট ডায়েটে থেকে পেঁপের রস, উচ্ছের রস খেলেও মাঝে মাঝে ডায়েটে চিট করে বাড়ির খাওয়ার খান তিনি।

তবে অনেকেই বলেন অভিনেত্রীর সবচেয়ে বড় দু’র্বলতা তার ছেলে প্রমীল। তবে সবচেয়ে চমকপ্রদ ত’থ্য হল অভিনেত্রীর সবচেয়ে বড় দু’র্বলতা হলো মিষ্টি‌‌।

অভিনেত্রী মিষ্টি খেতে খুব ভালোবাসেন। তিনি জ’ন্ম’দিন উপলক্ষে একটি ছবি পোস্ট করেন যেখানে দেখা যাচ্ছে তিনি বসে আছেন এবং তার সামনের প্লেটে অনেকরকম মিষ্টি সাজানো। তিনি ক্যাপশনে লেখেন ‘সুইট! মাই ওয়ান অ্যান্ড ওনলি উইকপয়েন্ট’ যা দেখে হতবাক হয়েছেন নেটিজেনরা।

পালিয়ে বিয়ে, নতুন বউ নিয়ে বাড়িতে আসতেই ঝাঁটা পেটা করলো ছেলের দিদা, ভাইরাল ভিডিও

0

আজকাল দিনে কত কিছুই যে সোশ্যাল মিডিয়ায় হয় তা আর জানতে বাকি নেই কারোরই। কখনও কারোর কোনো প্রতিভা যেমন নাচ,

গান, আবৃত্তি সবই আজ ভাইরাল হয় এই সোশ্যাল মিডিয়ায়। আর সেই দিয়ে অনেক মানুষের মনও জয় করে নেয় তারা। আর নানান মানুষের নানান প্রতিভা অবাক করে সকলে।

আর তেমনই সোশ্যাল মিডিয়ায় আরও অনেক কিছুই হয় যা প্রথম’দিকে খুবই অবাক ও অবাস্তব মনে হলেও পরে হেসে লু’টোপুটি খেতে হয়। সম্প্রতি একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যেখানে দেখা যাচ্ছে যে, একটি ছেলে এবং মে’য়ে বিয়ে বাড়ি এসেছে।

আর সেটা কাউকে না জানিয়েই। আর তাহলে বুঝতেই পারছেন নিশ্চই যে, এই সময় উভ’য় পক্ষের বাড়ির অবস্থা কেমন হয়?এমনকি তাঁদের মা’নসিক অবস্থা কোন পর্যায়ে থাকে। আর এখানেও ঠিক তেমনটাই হয়েছে। তাঁরা বিয়ে করে ছেলেটির বাড়ি আসে। এর সেটা কিছুতেই মেনে নিতে পারেনা ছেলেটির দিদা।

রীতিমতো ছেলেটিকে ঝাঁটা দিয়ে মা’রতে শুরু করে। এমনকি দু-একটা গালিগালাজও দেয় ছেলেটিকে। আর এই নিয়েই চলতে থাকে কিছুক্ষন।

আর তারপরই ছেলেটি বলে যে, সে মোটেও বিয়ে করেনি। এই ভিডিওটি ইচ্ছেকৃত ভাবেই করা হয়ে। আজকালকার যুগে যাকে আমরা প্রাঙ্ক বলি।

রাস্তাঘাটে আজকাল আমরা নানান ধরণের প্রাঙ্ক দেখতে পাই। যেটি প্রথম দিকে খুবই বা অস্বস্তিকর পরিবেশের সৃষ্টি করলেও পরে হাসতে হাসতে পেটে খিল ধরে যাওয়ার মতোন অবস্থার সৃষ্টি হয়।

সম্প্রতি এই ভিডিওটি তেমনই একটি ভিডিও যা প্রথমে খুবই থমথমে পরিবেশের সৃষ্টি করলেও পরে হাসতে বা’ধ্য হতে হয়। সম্প্রতি এই ভিডিওটি ঝড়ের বেগে ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

স্ত্রীর স’ঙ্গে ভাইরাল অভিনেতা আহমেদ শরীফের ছবি

0

আহমেদ শরীফ। ঢাকাই সিনেমায় দাপটের স’ঙ্গে অভিনয় করেছেন দীর্ঘদিন। ছিলেন হল মালিক। সেখান থেকে জড়িয়ে পড়েন সিনেমার প্রযোজনা ও অভিনয়ে।প্রায় আট শতাধিক বাংলা চলচিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি।

খলনায়ক হিসেবে সফল হলেও অনেক চলচ্চিত্রে ভিন্ন চরিত্রেও অভিনয় করে মুন্সিয়ানা দেখিয়েছেন। উপহার দিয়েছেন অসংখ্য সুপার হিট ছবি।

বর্তমানে এ অভিনেতা যুক্তরাষ্ট্রের নিউইর্য়কে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। মাঝেমধ্যেই তার দেখা মেলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। কখনো একা কখনো বা স্ত্রী’কে নিয়ে হাজির হন তিনি।

তেমনি দুটি ছবি পোস্ট করেছিলেন মঙ্গলবার (৩০ মার্চ)। সে ছবি দুটো ভাইরাল হয়েছে ফেসবুকে চলচ্চিত্রের বিভিন্ন গ্রুপে। সেখানে আহমেদ শরীফকে দেখা গেছে মাথায় গুচ্চির টুপি পরা আর তার স্ত্রী মেহরুন আহমেদ ক্যামেরাব’ন্দী হয়েছেন লাল টুকটুক শাড়িতে।

ছবি দুটো পোস্ট করে আহমেদ শরীফ লিখেছেন, ‘আমার সহধর্মিণী মেহরুন আহমেদ, যার প্রতি কৃতজ্ঞতার শেষ নেই।’ছবি দুটো দেখে আপ্লুত বাংলা সিনেমাপ্রেমীরা।

অনেকে দুজনের জন্য সুস্থতার প্রার্থনা জানাচ্ছেন। অনেকে আবার আহমেদ শরীফের অভিনয়কে মিস করেন বলেও মন্তব্য করেছেন।

প্রস’ঙ্গত, ১৯৪৩ সালের ১৩ আগস্ট কুষ্টিয়া জে’লার বানিয়াপাড়ায় জ’ন্মগ্রহণ করেন আহমেদ শরীফ। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা শেষ করেছেন।

তার অভিনীত প্রথম সিনেমা ‘অরুণোদয়ের অগ্নিসাক্ষী’। সুভাষ দত্ত পরিচালিত এ ছবিতে নায়ক চরিত্রে অভিনয় করেন আহমেদ শরীফ।

তবে খলনায়ক হিসেবে ১৯৭৬ সালে তিনি প্রথম অভিনয় করেন দেলোয়ার জাহান ঝন্টুর পরিচালনায় ‘ব’ন্দুক’ ছবিতে। এ ছবিটি সুপার’ডুপার হিট হয়।

চলচ্চিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি আহমেদ শরীফ টেলিভিশনের জন্য কিছু নাটক-টেলিফিল্মও নির্মাণ করেছেন। ২০০১ সালে প্রথম নির্মাণ করেন টেলিফিল্ম ‘ক্ষণিক বসন্ত’।

২০০৩ সালে বাংলাদেশ টেলিভিশনের জন্য তিনি নির্মাণ করেন নাটক ‘ফুল ফুটে ফুল ঝরে’। দীর্ঘ আট বছর পর নাদের খানের প্রযোজনা ও রচনায় হাস্যরসাত্মক গল্পের এ নাটকের নাম ‘মাইরের ও’পর ও’ষুধ নাই’।ব্যক্তি জীবনে স্ত্রী মেহরুন আহমেদের স’ঙ্গে সু’খের দাম্পত্যে এক কন্যার জনক তিনি।

ঘন্টা চুক্তিতে যা করছে কলেজে’র ছাত্রীরা

0

ডিজিটাল বাংলাদেশে স’বকিছুই যেন ডি’জিটালের হাওয়া। ডিজিটাল হওয়ায় ভা’লোর পাশাপাশি আ’ছে খা’রাপ। এরই অংশ হিসাবে বর্তমা’নে রা’জধানীতে অবাধে চলছে ফোনে যৌ’’**’তা।

আর ঢাকার তরুণীরা এক ঘন্টা বা দুই ঘন্টার চুক্তিতে এই ফোন ক’রতে বি’জ্ঞাপনের জ’ন্য ব্যবহার করছে বিভিন্ন ওয়েবসাইট, পাশাপাশি আ’ছে ফেস’বুকেরও ব্যবহার।

ফলশ্রুতিতে ফোন সে0*ক্স বাণিজ্য মহা’নগরীতে আর এই জ’ন্য আ’পনাকে অগ্রিম বিকাশ বা ফেলিক্সিলোড ক’রতে হবে নির্ধা’রিত ফোন নম্বরে। নচেৎ সাড়া দেয়া হয় না।

এ সং’ক্রা’’ন্ত অনেক ওয়েব সাইটে বি’জ্ঞাপনও প্র’চার করা হচ্ছে।ওই স’ব বি’জ্ঞাপনে ব’লে দেয়া হচ্ছে, বিকাশ বা ফেক্সিলোড মাধ্যম ছাড়া টাকা না পাঠিয়ে দয়া করে কেউ বি’র’ক্ত করবেন না। মিস ক’ল দেবেন না।

এ’কাধিক সূত্রে খোঁ’জ নিয়ে জা’না গেছে, স্কুল-ক’লেজে’র উঠতি তরুণরা এস’ব স’স্প’র্কে জ’ড়িয়ে গেছেন। বিনিময়ে খোয়াচ্ছেন বা’বা-মা’র কাছ থেকে আনা অর্থ।

ধীরে ধীরে এটা অনেকটা ম’হা’মা’রি আ’কারে দেখা দিচ্ছে। দেশের নামী এক ওয়েবসাইটে সাথী নামে এক তরুণী ০১৭৩০… এবং ০১৫৫৩৭৫… নম্বর দিয়ে ফোন অ’নৈতিক করার আ’হবান জা’নানো হয়েছে। তিনি ওয়েবসাইটে’র মাধ্যমে ব’লেছেন,

ফোনে অনৈ’তিক কাজ ক’রতে লাগবে এক ঘন্টায় তিনশ’ টাকা। আবার কারো কারো রেট এর চাইতে কম কিংবা বেশি। তবে স’বার ক্ষেত্রেই অগ্রিম বিকাশ না করলে এ সেবা মি’লবে না। মাইশা নামে এক তরুণী নম্বর

দিয়ে ব’লেছে, ফোন সে’* ক’রতে তার স’’ঙ্গে স’বচেয়ে বেশি মজা পাওয়া যাবে। এখনও এ’কা আ’ছি। ফোন করেই দেখু’ন না। আরও পড়ুন : হোক টিভি কিংবা অনলাইন,

সবখানেই তার মুখরিত পদচারণা। নাটকে তারথাকা মানেই দর্শকের বাড়তি আ’গ্রহ, ভালো লা’গা। বৈচিত্রময় চরিত্রে অভিনয় করে তিনি নিজেকে প্রতিষ্ঠিত ক’রেছেন এ প্রজ’ন্মের চাদিহাসম্পন্ন একজন অভিনেতা হিসেবে।

ম্যাঙ্গো স্কোয়াড নামের একটি ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করা ইউটিউবার শামীম হাসান স’রকার আজ তাই সময়ের জনপ্রিয় অভিনেতার নাম।
স’ম্প্রতি ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট সিজন থ্রি’-তে শামীমের না থাকা নিয়ে শোবিজে আলোচনার শেষ নেই। অনেক দর্শক এই বি’চ্ছেদ মানতে না পেরে নাটকের টিমের স’মালোচনাও করছেন।

তবে শামীম সবরকম বিত’র্ক এড়িয়ে চলতে চান। যারা তাকে মিস করবেন বলে মন খা’রাপ করছেন তাদের ভালোবাসাকে হৃদয়ে তুলে নিয়েছেন শ্রদ্ধায়, ভালো কাজে’র ফিডব্যাক হিসেবে। তিনি জা’নান,

শুধু ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’-ই নয়, স’ম্প্রতি সিদ্ধা’ন্ত নিয়েছেন সবরকম ধারাবাহিক নাটক থেকে বিরতি নেয়ার।শামীম হাসান স’রকার বলেন, ‘আমি আর কোনো ধারাবাহিকে অভিনয় করবো না। এ নাটকগুলোতে অনেক সময় দিতে হয়। যার ফলে অনেক নির্মাতার কাজগুলো পছন্দ হলেও ক’রতে পারি না।

তাছাড়া ধারাবাহিক ক’রতে গেলে একটি চরিত্রের মধ্যে আ’টকে থাকতে হয়। আমি বৈচিত্রময় কাজ ক’রতে চাই। আশা করছি দর্শক বি’ষয়টি ইতিবাচকভাবে নেবেন।

সবসময় ভালোবাসা দিয়েছেন, ভবি’ষ্যতেওভালোবাসবেন। তাদের জন্যই ম্যাঙ্গো স্কোয়াড থেকে আমি আজকের অভিনেতা শামীম হয়েছি।’ সেইস’ঙ্গে শামীম হাসান স’রকার জা’নান, তিনি তার প্রিয় ‘ম্যাঙ্গো স্কোয়াড-কেও সময় দিতে চান।

বর্তমানে শামীম হাসান স’রকার অভিনীত ‘ফ্যামিলি ক্রাইসিস’ ধারাবাহিকটি প্র’চার হচ্ছে। এটি পরিচালনা করছেন মোহাম্ম’দ মোস্তফা কামাল রাজ। এ নাটকটি শেষ হলে আর কোনো ধারাবাহিক নাটকে অভিনয়প্রস’ঙ্গত, মাবরুর রশিদ বান্নাহ পরিচালিত ‘নাইন অ্যান্ড হাফ’ নাটক দিয়ে শোবিজে প্রবেশ করেন শামীম।

এরপর আর তাকে পেছনে ফি’রে তাকাতে হয়নি। একের পর এক নাটকে কাজ ক’রেছেন।সর্বশেষ শামীমের ‘বয়ফ্রেন্ডের মা’ নাটকটি মু’ক্তি পেয়েছে ইউটিউবে। একদিনেই এ নাটকটি এক মিলিয়নেরও বেশি দর্শক দেখে ফে’লে ছেন।

এই নাটকে শামীমের মায়ের চরিত্রে মনিরা মিঠু ও প্রে’মিকার চরিত্রে পারসা ইভানা অভিনয় ক’রেছেন।এছাড়াও শিগগিরই প্র’কাশ হতে যাচ্ছে তার নতুন নাটক ‘ফ্যাটলাক’।

এখানে শামীমের বিপরীতে দেখা যাবে তানিয়া বৃষ্টিকে। মাহমুদ মাহিন পরিচালিত নাটকটিতে আরও দেখা যাবে মা’রজুক রাসেলকে।

বিয়ের দাওয়াত খেতে এসে, দীর্ঘ ১৫ বছর পর মায়ের সন্ধান পেলো ছেলে

0

প্রায় সময় অনেক প’রিবারের খুব কাছের মানুষ হা’রিয়ে যায়। আর এই সকল কাছের মানুষের খুঁজে পাওয়ার জ’ন্য তার পরিবারের লোকেরা অনেক চেষ্টা করে থাকেন। তবে অ’নেক সময় সেই নি’খোঁজ মানুষ কে দী’র্ঘদিন পর খুঁজে পান পরিবার।

আর এবার এক মাকে দীর্ঘ ক’য়েক বছর পর তার স’ন্তান খুঁজে পেলেন। আর এই ঘ’টনা ঘটেছে একটি বিয়ে বা’ড়িতে। দীর্ঘ কয়েক বছর পর মাকে দেখে ছেলে স’ন্তান চি’ন্তে পারেন এবং মা ছেলেকে চিন্তে পারেন। এই ঘ’টনায় ওই বিয়ে বাড়িতে একটি অন্যরকম প’রিবেশ সৃষ্টি হয়।

বর কনে নিয়ে বিয়ে বাড়িতে চলছে আ’নন্দ উৎসব। চলছে শি’শুদের দৌঁড়ঝাপ, কোলাহল। আ’ত্মীয়তার সুবাদে বিয়ের অ’নুষ্ঠানে আসেন বাগেরহাট জে’লার মোংলা থানার জি’রোধারাবাজি এলাকার ঘরখোল গ্রামের আল আমিন।তবে তার এই অ’নন্দের মাঝেও অনুসন্ধানী চোখ দুটো কি যেন খুঁজছিল।

খুঁজতে খুঁজতে যান পার্শ্ববর্তী বাজারে। সেখানে গিয়ে লোকমুখে শুনতে পান বাজারে থাকেন এক ’প’রহেজগার পা’গলী’। সারাদিন ইবাদত করেন। প’থচারীরা দয়া করে যা দেন তাই খেয়ে চলেন।

আল আমিনের ১৫ বছর আগে হা’রিয়ে যাওয়া মাও প’রহেজগার ছিলেন। তাই কৌতুহল নিয়ে যান দেখা করতে। দূর থেকে দেখে এগিয়ে যান দ্রু’ত। সামনে এসে কেউ কা’রো পরিচয় দিতে হয়নি। মায়ের চোখ চিনে নিয়েছে ১৫ বছর আগের স’ন্তানকে।

স’ন্তানও চিনে ফে’লেছে মাকে। স্নেহমাখা হাতে স’ন্তানকে বুকে জড়িয়ে নাম ধরেই ডাকলের বাজারে থাকা ’পরহেজগার পা’গলি’ মা। ১৫ বছর পর হা’রিয়ে যাওয়া মাকে খুঁজে পেয়ে আল আমিন হাউ মাউ করে কেঁদে উঠলেন।

গতকাল শুক্রবার শ্যা’মনগর উপজে’লার গাবুরা ইউনিয়নের চাঁদনীমুখা বাজারে এমন ঘ’টনা ঘটে। মা স’ন্তানের এমন মি’লন দেখে নি’জেদের অজান্তেই চোখ মোছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

আল আমিন জানান, তারা চার ভাই ও দুই বোন। তাদের মা গত ১৫ বছর আগে ব্রেনের স’মস্যা নিয়ে অ’সুস্থ হয়ে পড়েন। সব কিছু মনে রাখতে পারেন না। ঝড় বৃষ্টির এক রাতে তাদের মা আবেদা বেগম (৬৯) বাড়ি থেকে বের হয়ে যান।

এলাকায় মাইকিং, থানায় জি’ডি, পত্র প’ত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশসহ বহু স্থানে মাকে খোঁজা হয়। মাকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যা’য়নি। তবে বিশ্বাস ছিলো মা ম’রে’নি। তাই কোথাও গেলে সব কাজের ফাঁকে মাকে একটু খুঁজে দেখাটা অ’ভ্যাসে পরিণত হয়েছিলো।

তিনি আরো জানান, শুক্রবার দুপুরে সে তার প্রতিবেশীর সাথে এক আ’ত্মীয়ের বিয়েতে গাবুবায় আসেন। সেখানে জানাতে পারে গত দুই বছর ধরে বাজারে এক না’মাজি পা’গলী থাকে। তার ঠিকানা কেউ জানে না।

বি’ষয়টি শুনেই তার বিকেলে বিয়ে বাড়ির কোলাহল ছেড়ে তিনি বাজারে যান। বাজারে খোঁজাখুজির পর গাবুরা ইউনিয়ন প’রিষদের পাশের একটি দোকান ঘরের চালের নিচে বসে থাকা অবস্থায় ১৫ বছর আগে হা’রিয়ে যাওয়া মাকে সনাক্ত করেন।

গাবুরা ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদুল আলম জানান, পথ ভু’লে এলাকায় আসা পা’গলীকে তার স’ন্তানেরা খুঁজে পেয়েছে। স’ন্তানদের কাছে পেয়ে মাও যেমন খুশি তেমনি গাবুরাবাসীও খুশি। প্রিয় স’ন্তানের সাথে মাকে তার নিজ ঠিকানায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, দী’র্ঘদিন পর মাকে খুঁজে পেয়ে স’ন্তানরা বাধ ভাঙ্গা খুশি হয়েছেন। আর এই মাকে দেখতে আসছে অনেক মানুষ। তবে এই ছেলে স’ন্তান সব সময় তার মাকে খুঁজে পেতে চেষ্টা করছিলেন। আর তার মনে সব সময় হচ্ছিল তার মামা এখনো বেঁচে আছেন এবং আল্লাহ চাইলে আ’বারও খুঁজে পাবেন। তেমনি এবার তার মাকে দী’র্ঘদিন পর খুঁজে পেলেন এবং তাদের পরিবারে আ’নন্দের বন্যা বইছে।

স্কুল-কলেজ ছাড়া কোথাও বাবার নাম নিও না, স’ন্তানদের উদ্দেশ্যে মাশরাফী

0

নিজেই অনেকবার বলেছেন সে কথা। ছে’লে সাহিল এবং মে’য়ে হু’মায়ারার স’ঙ্গে

কা’টানো মু’হূর্তগুলোর ছবি মাঝেমধ্যেই সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট করেন তিনি। মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারি) দুই স’ন্তানের স’ঙ্গে একটি ছবি পোস্ট ক’রেছেন ম্যাশ। তবে ছবির স’ঙ্গে লেখা কথাগুলো একেবারেই আ’লাদা। মূ’লত পুরো পোস্টেই স’ন্তানদের নসিহত ক’রেছেন জাতীয় দলের সাবেক এ অধিনায়ক।

পোস্টে তিনি লি’খেছেন, অ’তীত যতোই ক’ঠিন বা মসৃণ হোক আবেগাক্রান্ত হয়ো না তা নিয়ে, এমন কি ভবি’ষ্যৎ নিয়েও তোম’রা কিছু ভেবো না বরং তোমাদের বর্তমানের প্রতিটি মু’হূর্তকে উপভো’গ করো। কারণ, বর্তমানই তোমা’র ভবি’ষ্যৎ।

মাশরাফী আরও লেখেন, বাবা হিসাবে এতোটুকুই চাইবো স্কুল, কলেজ, পাসপোর্ট বা আরও কিছু প্রয়োজনীয় জায়গা ছাড়া বাবার নাম নিও না। কারণ তোমাদের সাবলম্বী ক’রতে সম্ভাব্য যা কিছু প্রয়োজন তা তোমাদের বাবা- মা চেষ্টা করছে। বাকি জীবনটা নিজেদের মতো সাজিও নিও। অবশ্যই চাইবো সেটা যেন সঠিক পথে হয়।

হৃদয় দিয়ে লক্ষ লক্ষ হৃদয়ের গল্প জিতবে সেই আশাই করি।আল্লাহ তোমাদের সহায় হোন।সাহেল এবং হু’মায়রার এই ছবিটি পোস্ট ক’রেছেন মাশরাফী এদিকে উইন্ডিজে’র বিপক্ষে আসন্ন সিরিজে’র প্রাথমিক দলেও রাখা হয়নি মাশরাফীকে।

আপনার চেহারা থেকে কিভাবে 10 বছর কমিয়ে ফেলবেন তার গো’পন সূত্র Wellness এর আগে ২০১১ সালে ফি’টনেস স’মস্যার কারণে বিশ্বকাপ খেলতে পারেনি তিনি। আর এবার ফি’ট থেকেও ক্যারিয়ারের প্রথমবারের মতো বাদ পড়লেন ম্যাশ।এর আগে, ২০১৯ বিশ্বকাপে দলের বিপর্যয় আর নিজে’র

নিদারুণ ব্য’র্থতায় প্রেক্ষাপট অনেকটা তৈরি হয়ে গিয়েছিল।তারপরও ল’ড়াই চা’লিয়ে যাওয়ার ঘো’ষণা দিয়েছিলেন তিনি। বোর্ডের কে’ন্দ্রীয় চুক্তি থেকে স্বেচ্ছায় নিজেকে সরিয়ে নেওয়া, জিম্বাবুয়ে সিরিজ দিয়ে অধিনায়কত্বকে বিদা’য় জা’নানো, সবই ছিল ক্রিকেটার হিসেবে দলে জায়গা পাওয়ার ল’ড়াইয়ের অংশ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজে’র বিপক্ষে সিরিজে’র দল ঘো’ষণার আগে বঙ্গব’ন্ধু টি ২০ কাপ ছিল নিজেকে তুলে ধ’রার একটি সুযোগ। সেই আসরের চার ম্যাচের তিনটিতেই পারফরম্যান্স ভালো ছিল মাশরাফীর। একটিতে ৫ উইকেট নিয়ে হয়ে উঠেছিলেন ম্যাচের নায়ক। কিন্তু তাতেও মন গলেনি নির্বাচকদের।

প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু মাশরাফীকে বাদ দেয়ার ব্যাখ্যায় বলেছেন, দলকে নতুনভাবে গুছিয়ে সামনে এগোতে ও ২০২৩ বিশ্বকাপে চোখ রেখে নির্বাচক কমিটি, টিম ম্যানেজমেন্ট সবাই সম্মি’লিতভাবে এই সি’দ্ধান্ত নিয়েছেন।

এ বি’ষয়ে গণমাধ্যমকে মাশরাফী বলেন, এটা পেশাদার জগৎ। তারা সি’দ্ধান্ত নিয়েছেন, আমি পেশাদারিভাবেই নিচ্ছি এটাকে। আর কিছু বলার নেই। আগেও বলেছিলাম,

জাতীয় দলে সুযোগ না পেলেও খেলা চা’লিয়ে যাব। এখনও সেটিই বলছি। আপাতত আর কিছু ভাবছি না।আপাতত ঘরোয়া ক্রিকেট শুরুর অ’পেক্ষায় থাকতে হবে বাংলাদেশের সফলতম এই ওয়ানডে অধিনায়ক এবং নড়াইল-২ আসনের এ সং’সদ সদস্যের।

বিবা’হিত পুরু’ষের প্রেমে পড়া নিয়ে রেখাকে প্রশ্ন

0

সম্প্রতি ইন্ডিয়ান আইডলের অতিথি বিচারক হয়ে এসেছিলেন বলিউড অভিনেত্রী রেখা। নিজের কথায় একরাশ মুগ্ধতা ছড়ালেন ‘উমরাও জান’।কখনোই নিজের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে রাখঢাক না রাখা অভিনেত্রী আরো একবার বুঝিয়ে দিলেন, বদলাননি তিনি। রয়ে গিয়েছেন আগের মতোই। অনুষ্ঠানের সঞ্চালক ও বলিউড অভিনেতা জয় ভানুশালি মজার ছলে একটি প্রশ্ন রাখেন

রেখা ও আরো এক বিচারক নেহা কক্করের কাছে। জানতে চান, কখনো তারা কোনো না’রীকে বিবা’হিত পুরু’ষের প্রেমে পড়তে দেখেছেন কি না।এরপরে অপেক্ষা না করেই রেখার উত্তর, ‘এ বি’ষয়ে আপনি আমাকে জিজ্ঞাসা করুন।’ রেখার অভিব্যক্তিই যেন বুঝিয়ে দিলো, বিবা’হিত পুরু’ষের প্রেমে পড়ার বি’ষয়ে তার থেকে ভাল আর কেউ বলতে পারবেন না।

অভিনেত্রী যে তার কথার মাধ্যমে অমিতাভ বচ্চনের সাথে তার অতীতের কিস্‌সার দিকে ইঙ্গিত করছেন, সে কথা বুঝতে অসুবিধা হয়নি সেখানে উপস্থিত কারওরই। স্বয়ং সঞ্চালকই বুঝে উঠতে পারছিলেন না, কী বলবেন। দর্শকদের মধ্যেও উঠে গিয়েছে হাসির রোল। পরিস্থিতি সামাল দিতে কিছুটা খু’নসুটির সুরেই রেখা বললেন,

‘আমি কিন্তু কিছুই বলিনি।’ তখনই জয় বলেন, কথার মাধ্যমেই ছক্কা হাঁকিয়ে দিয়েছেন রেখা। শুধু কথাতেই বাজিমাত করেননি রেখা। মঞ্চে গিয়ে প্রতিযোগীদের সাথে রীতিমতো নেচে উঠেছেন তিনি। মজা-খু’নসুটি-নাচে অভিনেত্রী একাই মাতিয়ে রাখেন গোটা একটা পর্ব। সূত্র : আ’নন্দবাজার পত্রিকা

আমি যেটাই করেছি ভু’ল করেছি, আমি মাফ চাইছি: মিথিলা

0

শৌচাগারে গো’পন ক্যামেরায় পুরু’ষের ন’গ্ন ভিডিও ধারণ করে ফেসবুকে প্রকাশ করা নিয়ে সমালোচনার মুখে ক্ষমা চেয়েছেন মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ-২০২০ মডেল তানজিয়া জামান মিথিলা।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক থেকে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে ক্ষমা চান মিথিলা। এরপরে সেই স্ট্যাটাসটি ‘হাইড’ করে ফে’লেন তিনি। ভিডিওতে মিথিলা ও মাহি জানান, পুরু’ষ শৌচাগারে ঢুকে এক ব্যক্তির ন’গ্ন ভিডিও ধারণ করেছিলেন তারা।

মজার ছলে ভিডিওটি ধারণ করেছিলেন তারা। সেই ভিডিওটি নিজের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শেয়ারও করেছেন মডেল মাহি। তাতে দেখা গেছে, ভিডিও ধারণ শেষে হাসতে হাসতে দৌড়ে বেরিয়ে আসছেন মিথিলা ও মাহি।

এ প্রস’ঙ্গে গতকাল মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) রাতে মিথিলা একটি গণমাধ্যমকে বলেন, আমি যেটাই করেছি ভু’ল করেছি। আমি মাফ চাইছি। মানুষ ভু’ল করে এটাই স্বাভাবিক। কেউ ভু’ল করে যদি মাফ চায় তারপর তো আর প্যাঁচানোর কিছু নাই।

মিথিলা বলেন, মানুষ ছোট থাকতে বা অনেকে না বুঝে ভু’ল করে ফে’লে। মানুষ যদি কারও কাছে মাফ চায় সেখানে আমরা মাফ করে দিতেই পারি। ৩ এপ্রিল মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ হিসেবে মিথিলার নাম ঘোষণার পর ২০১৮ সালে দেওয়া মিথিলার এক সাক্ষাৎকারের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে ফেসবুকে।

জামানত ছাড়াই ৫০ কোটি টাকা ঋ’ণ দেবে বিসিক, যারা পাবেন

0

ক’রোনাভা’ইরাসেের কারণে ক্ষ’তিগ্রস্ত কুটির, অতিক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (সিএমএসএমই) উদ্যোক্তাদের জন্য ৫০ কোটি টাকা প্রণোদনা ঋ’ণ বিতরণ করবে শিল্প ম’ন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সংস্থা বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক)।

সোমবার (৫ এপ্রিল) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব ত’থ্য জানিয়েছে বিসিক। এতে বলা হয়, একজন উদ্যোক্তা জামানতবিহীন দশ লাখ টাকা এবং সর্বোচ্চ বিশ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋ’ণ নিতে পারবেন। বিসিকের অনুকূলে আর্থিক প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় অর্থ ম’ন্ত্রণালয় থেকে প্রা’প্ত

বিশেষ অনুদান বাবদ সিএমএসএমই উদ্যোক্তাদের জন্য বরাদ্দকৃত ৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা ঋ’ণ ৩০ জুনের মধ্যে বিতরণের জন্য বিসিকের প্রতিটি আঞ্চলিক ও জে’লা কার্যালয়কে নির্দেশ প্রদান করেছেন বিসিক চেয়ারম্যান মোশতাক হাসান।

একজন উদ্যোক্তা জামানতবিহীনভাবে দশ লাখ টাকা এবং সর্বোচ্চ বিশ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋ’ণ নিতে পারবেন। উক্ত প্রণোদনা প্যাকেজের দশ শতাংশ ঋ’ণ না’রী উদ্যোক্তাদের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

বিসিক চেয়ারম্যান বলেন, আর্থিক প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় বিসিকের অনুকূলে বরাদ্দকৃত একশ’ কোটি টাকার ঋ’ণ তহবিলের মধ্যে বিশেষ অনুদান বাবদ ৫০ কোটি টাকা পাওয়া গেছে। প্রা’প্ত অর্থ ৩০ জুনের মধ্যে বিতরণের বা’ধ্যবাধকতা রয়েছে।

বিসিক প্রধান কার্যালয় থেকে রবিবার (৪ এপ্রিল) সারাদেশে আঞ্চলিক কার্যালয় ও বিসিক জে’লা কার্যালয়ে এ ঋ’ণ যথাসময়ে বিতরণের জন্য নির্দেশনা দিয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

পাশাপাশি শতভাগ ঋ’ণ বিতরণ কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য ঋ’ণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। এ ঋ’ণের গ্রাহক পর্যায়ে সর্বোচ্চ সুদের হার হবে ৪ শতাংশ। ছয় মাস গ্রেস পিরিয়ডসহ ১৮টি মাসিক সমান কিস্তিতে সর্বোচ্চ দুই বছরে এ ঋ’ণ শোধ করতে পারবেন উদ্যোক্তারা।