সব আ’সামি গ্রে’ফতার হলেই অ’নশন ভাঙব: ঢাবি ছাত্রী

0
218

সব আ’সামি গ্রে’ফতার না হওয়া পর্যন্ত অ’নশন চা’লিয়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছেন ধ’র্ষণের অ’ভিযোগে মা’মলা করা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সেই ছাত্রী। মা’মলায় ইতিমধ্যে দুইজন গ্রে’ফতার হয়েছেন, তাদের রি’মান্ড চলছে। তবে বাকি আ’সামিদের গ্রে’ফতারের না হওয়া পর্যন্ত অ’নশন চা’লিয়ে যাবেন তিনি।

তিনি জানান, দুই আ’সামিকে গ্রে’ফতার করা হয়েছে। তাদের আ’দালতে হাজির করলে বিজ্ঞ আ’দালত তাদের দুইদিনের রি’মান্ডও মঞ্জুর করেছেন। সেক্ষেত্রে কিছুটা আশার আলো দেখতে পাচ্ছি। তবে বাকি যে কয়জন (৬ জন) আ’সামি রয়েছে তাদের প্রত্যেককে দ্রু’ত সময়ের মধ্যে গ্রে’ফতার করার দাবি জানাই। সবাইকে গ্রে’ফতার করা পর্যন্ত আমি এখানে অবস্থান করবো।

টানা অ’নশনে অ’সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকেও ঘুরে এসেছেন তিনি। শারিরিক অবস্থা সম্প’র্কে জানান, আমি অ’সুস্থ ছিলাম, ব্লাড প্রেসার কিছুটা কমে গিয়েছিল। আজকে আবার গ’লায়ও স’মস্যা হচ্ছে। তবে এখন সুস্থ আছি।

এদিকে সম্প্রতি ফেসবুক লাইভে এসে ধ’র্ষণ মা’মলার বা’দীকে ‘দুশ্চরিত্রা’ বলার অ’ভিযোগে বেশ আলোচনা-সমালোচনা চলছে। ঢাবি ছাত্রী বলেন, ফেসবুক লাইভে ডাকসু সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর যে বক্তব্য দিয়েছেন তা ‌দায়িত্বজ্ঞানহীন, মনগড়া ও বানোয়াট। তিনি আমাকে নিয়ে যে কথা বলেছেন তা ছাত্র প্রতিনিধি হিসেবে তার মুখে মানায় না। এ কথার মাধ্যমে তিনি এক রকম ধ’র্ষণের বৈধতা দিচ্ছেন।

এ মা’মলায় নুরুল নুরকে আসামী করা হলেও তিনি নিজেকে নির্দোশ দাবি কলেছেন। তিনি বলেছেন, আমি চ্যালেঞ্জ করে বলছি, আমার বি’রুদ্ধে দুটি অ’ভিযোগ। প্রধানত, তাঁকে (মা’মলার বা’দী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী) আমি প’তিতা বলে হু’মকি দিয়েছি। যদি প্রমাণ করতে পারে, স্বেচ্ছায় ফাঁ’সি নেব। দ্বিতীয়ত, যদি প্রমাণ করতে পারে, তাঁর স’ঙ্গে আমার নীলক্ষেতে দেখা হয়েছিল বা মীমাংসার জন্য তাঁর স’ঙ্গে নীলক্ষেতে বসেছিলাম। এই দুটো অ’ভিযোগের একটাও যদি প্রমাণ করতে পারে, স্বেচ্ছায় ফাঁ’সি নেব। লাইভে এসে বললাম।

নুর-মামুনসহ ছয়জনের বি’রুদ্ধে রাজধানীর কোতওয়ালী থানায় ও লালবাগ থানায় পৃথক দুটি মা’মলা করা হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে ইসলামিক স্টাডিজ পড়ুয়া এক ছাত্রী ওই মা’মলা করেন। তিনি বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের ছাত্রী। লালবাগ থানার মা’মলার বর্ণনায় ওই ছাত্রী হাসান আল মামুনের স’ঙ্গে প্রেম ও প্রণয়ের কথা জানিয়ে বিয়ে নিয়ে টালবাহা’নার অ’ভিযোগ তুলেছেন।

মা’মলার অন্য আ’সামিরা হলেন- ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক নাজমুল হাসান, মো. সাইফুল ইসলাম, মো. নাজমুল হুদা ও মো. আবদুল্লাহ হিল বাকী। একই তরুণীর করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মা’মলার মূ’ল আ’সামি পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক নাজমুল হাসান। আর তিন নম্বর আ’সামি নুরুল হক নুর। বাকিরা হলেন আহবায়ক হাসান আল মামুন, যুগ্ম আহবায়ক মো. সাইফুল ইসলাম, মো. নাজমুল হুদা ও মো. আবদুল্লাহ হিল বাকী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here