উন্নয়ন ও সমীকরণে এগিয়ে মেয়র অ্যাডভোকেট নজরুল

0
64

কুমিল্লার হোমনা পৌরসভায় আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রার্থীদের ব্যাপক দৌড়ঝাঁপ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এখনও নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা না করা হলেও এলাকার মোড়ে মোড়ে আওয়ামী লীগের অর্ধডজন প্রার্থীর ব্যানার ফেস্টুন দেখা যাচ্ছে।

তবে শুধু ব্যানার ফেস্টুনেই নয়, ভোটের সমীকরণ, এলাকার উন্নয়ন এবং লবিংয়ে এগিয়ে রয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান মেয়র অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম।

এক সময়ের নি’র্যাতিত ছাত্রনেতা মেয়র নজরুল ইসলাম বর্তমানে হোমনা উপজে’লা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এবং কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-আইন বি’ষয়ক সম্পাদক।

এছাড়া এ পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীর তালিকায় রয়েছেন- আনোয়ার হোসেন বাবুল, ছিদ্দিকুর রহমান আবুল, মেজবাহ উদ্দিন স’রকার মোয়াজ্জেম হোসেন মোসলেম, লায়ন শাহ আজম বিটু। আর বিএনপি থেকে গত নির্বাচনে পরাজিত মেয়র প্রার্থী আব্দুল লতিফের নাম শোনা যাচ্ছে।

গত পাঁচ বছরে মেয়র নজরুল ইসলামের অক্লান্ত পরিশ্রম এবং আন্তরিক প্রচেষ্টায় হোমনা পৌরসভা এখন উন্নয়নের রোল মডেল। এতে আসন্ন নির্বাচনেও মেয়র নজরুলকে নিয়েই ভাবছেন এ পৌরসভার সিংহভাগ নাগরিক।

জানা যায়, মেঘনা-তিতাসসহ কয়েকটি ছোট বড় নদীবেষ্টিত কুমিল্লার হোমনা পৌরসভা। এ পৌরসভায় অর্ধলক্ষাধিক নাগরিকের বসবাস হলেও মূ’ল ভোটার রয়েছেন ২৫ হাজার। পৌরসভা প্রতিষ্ঠার পর থেকে বেশ কয়েকজন পৌরপিতা নির্বাচিত হলেও নাগরিকদের প্রত্যাশা এবং ব্যাপক উন্নয়নের মাধ্যমে পৌরসভার আমূ’ল পরিবর্তন করতে পেরেছেন বর্তমান আওয়ামী লীগের মেয়র অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম।

এক সময়ের বিএনপির ঘাঁটি হোমনায় নজরুল ইসলামই আওয়ামী লীগের নির্বাচিত প্রথম হিসেবে বিজয়ের ধারার শুভসূচনা করেন। ত্যাগী এবং দলের দুর্দিনের কাণ্ডারি হিসেবে পরিচিত এই মেয়র হোমনা পৌরসভার চেহারা পাল্টে দিয়েছেন বলে জানান স্থানীয় বাসিন্দারা।

শুধু উন্নয়ন নয়, নিজের বিনয়ী স্বভাব এবং বন্ধুসুলভ আচরণের মাধ্যমে তিনি এখন পৌরবাসীর প্রিয় নজরুল ভাই। সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ নির্দ্বিধায় তার সাথে মন খুলে কথা বলতে পেরে অনেকটাই সন্তুষ্ট মেয়রের প্রতি। নিরহংকার নির্লোভ সদা হাস্যোজ্জ্বল বিনয়ী এ মেয়রকে পুনরায় নির্বাচিত করতে চান পৌরবাসী।

বিগত নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে তিনি নিয়মিত এলাকায় অবস্থান করে পৌরবাসীকে নাগরিক সেবা প্রদান করে যাচ্ছেন। প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ঘুরে বেড়ান পৌরসভার অলিগলিতে। শুধু নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নয় সর্বদাই তিনি বিচরণ করেন কৃষক-শ্র’মিক-জনতার মাঝে।

পৌর সূত্রে জানা যায়, গত পাঁচ বছরে মেয়র নজরুল ইসলাম এ পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে রাস্তা-ঘাট, ব্রিজ-কালভার্ট, ড্রেনেজ নির্মাণ, বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান, ব’য়স্কভাতা, বিধবা ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতাসহ জনসাধারণকে আর্থিক সাহায্য সহযোগিতা প্রদান করেছেন। বিশেষ করে পৌর সদরে একটি আধুনিক মার্কেট নির্মাণ, একটি সুপেয় পানি সুধানাগার প্রকল্প, উপজে’লা সদরের ড্রেন নির্মাণ, বেগম ফজিলাতুন্নেসা সড়ক নির্মাণ, পৌর চত্বরে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল নির্মাণ, হোমনা ডিগ্রি কলেজে বধ্যভূমি স্মৃ’তিস্তম্ভ নির্মাণ, মেঘনা নদীর তীরে বিসিক শিল্পনগরী গড়ে তোলার উদ্যোগ গ্রহণ করে এলাকার চিত্র পাল্টে দিয়েছেন।

সাধারণ ভোটারদের সাথে আলোচনা করে জানা যায়, হোমনা পৌরসভা নির্বাচনে সব সময় আঞ্চলিকতা গুরুত্ব পায়। এ পৌরসভায় মোট ২৫ হাজার ভোটার রয়েছে। আর পৌরসভার শ্রীম’দ্দি এলাকার একটি কেন্দ্র এলাকা থেকেই প্রার্থী হয়েছেন- আওয়ামী লীগের মেজবাহ উদ্দিন স’রকার, মোয়াজ্জেম হোসেন মোসলেম, লায়ন শাহ আজম বিটু এবং বিএনপির আব্দুল লতিফ। শ্রীম’দ্দি এলাকার মোট তিনটি কেন্দ্রে ৬ হাজার ৮০০ ভোটার রয়েছেন। আর এবারের নির্বাচনে এ তিন কেন্দ্রেই অধিকাংশ প্রার্থীদের অবস্থান। আর বাকি ১৮-১৯ হাজার ভোটারই বর্তমান মেয়র অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলামকে পুনরায় নির্বাচিত করতে চান বলে জানান স্থানীয়রা।

এছাড়া জে’লা আওয়ামী লীগসহ তৃণমূ’লও চায় নজরুলকে পুনরায় মনোনয়ন দেয়া হোক। তাই উন্নয়ন, দলীয় লবিং এবং ভোটের সমীকরণে মেয়র নজরুলের ধারেকাছেও কাউকে দেখা যাচ্ছে না বলে অভিমত এলাকাবাসীর।

এ বি’ষয়ে কুমিল্লা উত্তর জে’লা আওয়ামী লীগের সভাপতি ম. রুহুল আমীন বলেন, অবশ্যই ত্যাগী এবং দলের দুর্দিনের কাণ্ডারিসহ ক্লিন ইমেজের প্রার্থীদেরই দল বেছে নেবে। হোমনা পৌর নির্বাচনে বেশ কয়েকজন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী হলেও বর্তমান মেয়র নজরুল ইসলামের প্রতিই ভোটার এবং তৃণমূ’লের আস্থা রয়েছে বলে আমরা শুনেছি। তবে দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনাসহ দলীয় সি’দ্ধান্তই চূড়ান্ত।

এ বি’ষয়ে মেয়র অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীসহ হোমনার সং’সদ সদস্য সেলিমা আহমাদ মেরী আপার সার্বিক সহযোগিতায় আমি এ পৌরসভাকে উন্নয়নের মহাসড়কে উন্নীত করেছি, দিনে দিনে এ পৌরসভা একটি মডেল পৌরসভায় পরিণত হচ্ছে, নাগরিক সেবার মান বৃ’দ্ধি পাচ্ছে, এক সময়ের অবহেলিত এ পৌরসভাকে আমি একটি মিনি শহরে পরিণত করেছি, আগামী নির্বাচনে দলের সভানেত্রী যদি আমাকে নৌকা প্রতীক দেন তাহলে হোমনা পৌরবাসীকে আরও উন্নত নাগরিক সেবা প্রদানসহ এ পৌরসভাকে আধুনিক পৌরসভায় রূপান্তর করব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here