সেই রাতে আমি জীবনের মূ’ল্যবান সম্পদ হা’রিয়েছি: শবনম পারভীন

0
141

কৌতুক অভিনেত্রী হিসেবে বেশ পরিচিত শবনম পারভীন। এছাড়াও তিনি একজন পরিচালক এবং প্রযোজক। বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’তে তিনি নাতির বিপরীতে নানি চরিত্রে অভিনয়ের জন্য জনপ্রিয়তা পান।

একবার শুটিং এর ফাঁকে নৃত্য পরিচালক মাসুম বাবুল, আলেক জান্ডার বো, জায়েদ খান, জয় চৌধুরীসহ অনেকের স’ঙ্গেই চায়ের আড্ডা মেতেছিলেন তিনি। সেই আড্ডা জমে উঠতে বেশি সময় লাগলো না। সেখানেই শবনম পারভীন তার জীবনের ভ’য়ংকর এক রাতের রোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন।

শবনম পারভীন বলতে শুরু করলেন এভাবে, এটি ছিলো আমার জীবনের সবচেয়ে বেদনাদায়ক অ’ভিজ্ঞতা। বাবার শ’রীরিক কিছু স’মস্যা আছে। পরদিন সকালে চেকআপ করাতে হবে।

বাবা ৯টার মধ্যেই ঘুমিয়ে পড়েন। সেদিনও ঘুমিয়েছেন। কিন্তু আমার ঘুম আসছিলো না। হঠাৎ একটা শব্দ কানে এলো। গুরুত্ব দিলাম না। চোখ প্রায় লেগে এসেছে। কিছুক্ষণ পর আবার শব্দ হলো। চোখ মেলে দেখি আমার সামনে কয়েকজন দা নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে।

আমার স্বা’মীকে ততক্ষণে বেঁ’ধে ফে’লেছে। পাশের রুমে আমার মে’য়েদেরও হাত-মুখ বেঁ’ধে রেখেছে। প্রচণ্ড ভ’য় পেয়ে গেলাম! এদিকে বাবার রুম থেকে গোঙানির শব্দ পাচ্ছি। বুঝলাম বাবাকেও বেঁ’ধে ফে’লেছে।

আমি ডাকাতদের স’ঙ্গে ঘুরছি আর বলছি- তোমরা সব নিয়ে তাড়াতাড়ি আমাদের ছেড়ে দাও। কিন্তু ওরা আমার কথা পাত্তা দিচ্ছিল না। উল্টো ফ্রিজ থেকে দধি বের করে আয়েশ করে খাচ্ছিল।

উপস্থিত সবাই এ কথায় হেসে উঠলাম। শবনম পারভীনের প্রতিক্রিয়া ঠিক উল্টো। কণ্ঠ ধরে আসছে। নিজেকে সামলে নিয়ে বললেন, ‘আজ বি’ষয়টি হাসির মনে হলেও সেদিন আমি জীবনের মূ’ল্যবান সম্পদ হা’রিয়েছি। ডাকাতরা চলে যাওয়ার পর লক্ষ্য করলাম বাবা আর বেঁচে নেই। শ্বাস আ’টকে বাবার মৃ’ত্যু হয়।

মৃ’ত্যুর আগে বাবা খুব ছ’টফট করেছিল। ডাকাতের দল ভেবেছিল বাবা হয়তো চি’ৎকার করবে। তাই ওরা বাবার মুখ শ’ক্ত করে বেঁ’ধেছিল। অথচ বাবা শ্বাস নিতে পারছিলেন না বলেই ছ’টফট করছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here