যে অদ্ভূত কাজটি করে বৌভাতের অনুষ্ঠানে চ’মক দেখালেন নবদম্পতি নিরাদ-ফারজানা

0
138

নীলফামা’রীতে দরিদ্র সুবিধাবঞ্চিত শি’শু শিক্ষার্থীদের নিয়ে এক বৌভাত আয়োজন করা হয়েছে। আজ রবিবার (২৩ আগস্ট) দুপুরে জে’লা সদরের কচুকা’টা ইউনিয়নের কোরাণীপাড়া আশা শিক্ষাকেন্দ্র চত্বরে এটি অনুষ্ঠিত হয়। এ বৌভাত আয়োজন করে পৌরশহরের শাহীপাড়া মহল্লার নবদম্পতি নিরাদ-ফারজানা।

অনুষ্ঠানে আসা প্রত্যেক শি’শুকে নতুন জামা-প্যান্ট উপহার দিয়ে বরণ করে নেন নব দম্পতি। এই অ’তিথিদের নিজহাতে বেড়ে খাওয়ান এই বর-বউ। আর খাবারের তালিকায় ছিল ভাত, মাংস, ডাল, ডিম, মিষ্টি ও কোমল পানীয়। অনুষ্ঠানে শি’শু অ’তিথি ও অ’ভিভাবক মিলিয়ে ২০০ জন অংশ নেন বলে জানায় আয়োজকরা।

বর নীলফামা’রী পৌর শহরের শাহীপাড়ার মহল্লার এটিএম মোস্তফা চৌধুরীর দ্বিতীয় ছে’লে নিরাদ আল আশরাফি। আর নববধূ হলেন দিনাজপুর জে’লার সুইহারির ব্যবসায়ী লূৎফর রহমানের মে’য়ে ফারজানা ইয়াসমিন।

ত ১৪ অগাস্ট পেশায় ফিল্ম মেকার নিরাদের স’ঙ্গে অনার্স তৃতীয় বর্ষের ছা’ত্রী ফারজানার বিয়ে হয়। করো’নাভাই’রাসের পরিস্থিতে স্বল্প পরিসরে পারিবারিক আয়োজনে বিয়ে হওয়ায় তাদের মনের মতো করে আ’নন্দ করতে পারেননি তারা। সে কারণেই ব্যতিক্রমী এই বৌভাতের আয়োজনের উদ্যোগ বলে জানান নব দম্পতি।

বর নিরাদ বলেন, করো’না পরিস্থিতির মধ্যেই গত ১৪ অগাস্ট আমি বিবাহ বন্ধ’নে আবদ্ধ হই। পারিপারিক আয়োজনে বিবাহ হলেও করো’নার কারণে বৌভাত আয়োজন হয়নি। বি’ষয়টি মা’থায় নিয়ে আম’রা ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বৌভাত আয়োজনের পরিকল্পনা করি। সেখান থেকেই আমা’র বিয়ের বৌভাত অনুষ্ঠানে অ’সহায় শি’শু শিক্ষার্থীদের খাওয়ানোর চিন্তা আসে।

তিনি জানান, করো’নাভাই’রাস সং’কটের মধ্যে নীলফামা’রীর বাড়িতে অবস্থান কালে সেইফ ফাউন্ডেশন নামে এক সংগঠনের বিভিন্ন মানবিক কাজে অংশ নিচ্ছিলেন তিনি। সেই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সাথে সহযোগিতায় এই বৌভাতের আয়োজন তার।

নববধু ফারজানা বলেন, জ’ন্মের পর থেকে থেকে শহরে মানুষ হয়েছি। গ্রামের শি’শুদেরকে নিয়ে এমন এক অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পারব তা কখনো ভাবিনি। এটি আমা’র জীবনে মাইলফলক হয়ে থাকবে।

জীবনে এমন আ’নন্দ এটিই প্রথম জানায় অনুষ্ঠানের অ’তিথি দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র হু’মায়ুন কবীরসহ তার বন্ধুরা। তারা বলল, অনেক দিনপর ভালো খাবার খেলাম। হু’মায়ুন বলে, নতুন জামা পরে আ’নন্দও করলাম। সবাই মিলে বিয়ার গীত গাইলাম।

প্রত্যেক শি’শুর স’ঙ্গে একজন করে অ’ভিভাবককেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। এক শি’শুর অ’ভিভাবক মুক্তা বেগম এ অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে আ’নন্দিত। তিনি বলেন, এলাকায় শি’শুদেরকে নিয়ে এমন অনুষ্ঠান আর কখনো দেখিনি। বৌভাত অনুষ্ঠানে খাওয়া শেষে নতুন জামা-প্যান্ট পরে সব শি’শু এক সাথে গাইল বিয়ের গীত। প্রা’ণভরে বিয়ের অনুষ্ঠান উপভোগ করল শি’শুরা, এমনকি আম’রা গ্রামবাসীরাও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here