কেন্দুয়ায় এসএসসি প’রীক্ষার্থী ধ’র্ষণের শি’কার, ছয় মাসেও মা’মলা নে’ননি ওসি

0
225

নেত্রকোনা জে’লার কেন্দুয়া উপজে’লার শান্তিনগরের সোহরাব মাষ্টারের বাসায় এক এসএসসি প’রীক্ষার্থীকে ধ’র্ষণ করে ছিলিমপুরের বাসিন্দা মুকুল খানের পুত্র পিন্স খান বাবু। গত ২৯ জানুয়ারি বিকালে ঘ’টনাটি ঘটনো হয়।

পু’লিশ অ’ভিযান চা’লিয়ে ঘ’টনাস্থল থেকে ধ’র্ষণের শি’কার ভি’কটিমকে উ’দ্ধার এবং ধ’র্ষণকারী বাবুকে আ’টক করে থানায় নিয়ে আসে।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে ঘ’টনার পরদিন ৩০ জানুয়ারি ভি’কটিমের বড় ভাই কেন্দুয়া পাড়াতৈল গ্রামের বাসিন্দা কামরুল ইসলাম থানায় গিয়ে ওসি রাশেদুজ্জামান বরাবর বোনকে জো’রপূর্বক ধ’র্ষনের অ’ভিযোগ দা’য়ের করেন।

থানার ওসি প্রথমে বি’ষয়টি পজেটিভ হিসাবে নিলেও অ’জ্ঞাত কারণে পরে ওসি কামরুল ইসলামকেই থানায় একটি কক্ষে প্রায় ১৪ ঘন্টা আ’টক করে রাখেন। উপরন্তু ওসি তাকে হু’মকি দেয় যে, এবি’ষয়ে মা’মলা করলে অন্য মা’মলায় তোর বোন এবং তোকে আ’টক দেখিয়ে কোর্টে চালান দিব।

ওসি শা’সিয়ে বলে, তোর বোন খা’রাপ প্রকৃতির মে’য়ে। প’তিতার ব্যবসা করে। হু’মকি শেষে ধ’র্ষণের শি’কার ১৬ বছর ব’য়সী ঐ ভি’কটিম এবং তার বড় ভাইয়ের নিকট থেকে ওসি সাদা কাগজে স্বাক্ষর রেখে থানা থেকে বের করে দেন।

কামরুল ইসলাম থানা থেকে বের হয়ে বি’ষয়টি নেত্রকোনার পু’লিশ সু’পারকে (এসপি) আকবর আলী মুনশিকে জানান। এসপি অবগত হয়ে বি’ষয়টির পরিপ্রেক্ষিতে ওসিকে মা’মলা নেয়ার নির্দেশ দেন।

পরে ওসি ফোন করে কামরুল ইসলামকে জানায় যে, মা’মলা নেয়া হবে। ওসি তাদেরকে থানায় আসতে বলেন।

বোনকে নিয়ে থানায় এলে ওসি তাদেরকে আলাদা রুমে আ’টকে রাখেন। হু’মকি দেন, তোদের কতবড় সা’হস আমার বি’রুদ্ধে এসপির কাছে অ’ভিযোগ করেছিস।

দীর্ঘ ৪৮ ঘন্টা থানায় আ’টকে রেখে আবারও পৃথক দুটি সাদা কাগজে স্বাক্ষর রেখে বলেন যে, মা’মলা নেব। তোরা এখন যা। এরপর ছয় মাস পেরিয়ে গেলেও এখনও অ’ভিযোগটি মা’মলা আকারে রেকর্ডভুক্ত করেনি ওসি। ক’রোনা পরিস্থিতিতে আ’দালতে গিয়েও মা’মলা করতে পা’রেননি ভু’ক্তভোগীরা। কারণ আ’দালত বন্ধ।

ভূক্তভোগী কামরুল ইসলাম অ’ভিযোগ করেন, ওসির ভ’য়ভী’তি ও হু’মকির কারণে ৬ মাস যাবৎ আমরাই প’লাতক জী’বন- যা’পন করছি।

ধ’র্ষণের শি’কার এসএসসি প’রীক্ষার্থী জানান, ওসি রাশেদুজ্জামান আমাকে অ’শালীন ভা’ষায় খা’রাপ খা’রাপ কথা বলেছেন।

তখন আমি তাকে বলেছি আমি আপনার মে’য়ের মত। তারপরও তিনি আমাকে বে’শ্যাসহ নানান গা’লিগা’লাজ করেন।

একজন না’রী পু’লিশকে দিয়ে আমার চোখ বেঁ’ধে হা’ত পেছনে বেঁ’ধে ৬ ঘন্টা আ’টকে রাখেন। ধ’র্ষক বাবু স্থা’নীয় প্র’ভাবশালী ব্য’ক্তির পুত্র হওয়ায় বি’ষয়টি ভিন্নখাতে প্রবাহের চে’ষ্টা চলছে।

এদিকে কামরুল ইসলাম বা’দী হয়ে মা’মলা নিতে এবং ওসির বি’রুদ্ধে ব্য’বস্থা নিতে আইজিপি বরাবর গত ১০ জুন একটি লিখিত অ’ভিযোগ করেছেন।

কামরুল ইসলাম বলেন, ওসি আমাকে ক্র’স ফা’য়ারের ভ’য় দেখানোয় পরে এসপিকে আর এ ব্যাপারে কিছুই জানাইনি।

কেন্দুয়া থানার ওসি রাশেদুজ্জামান বলেন, এসব আমার বি’রুদ্ধে ষ’ড়যন্ত্র।

অ’ভিযোগ রয়েছে, অ’নিয়মসহ বিভিন্ন ঘ’টনায় ওসি রাশেদুজ্জামানকে নিয়ে বি’তর্ক হচ্ছে। এ ব্যাপারে তার বি’রুদ্ধে ত’দন্তও করছে জে’লা পু’লিশ ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here