স্বা’মীর পরকিয়ায় বা’ধা, হাত পা বেঁ’ধে স্ত্রীর গো’পনা’ঙ্গে ছ্যাঁকা

0
132

শ্রীনগরে স্বা’মীর পরকিয়া প্রেমে বা’ধা দেয়ায় স্ত্রীর গো’পনা’ঙ্গে ছ্যাঁকা দিয়েছে এক পা’ষ’ণ্ড স্বা’মী। গত ১২ আগষ্ট গভীর রাতে উপজে’লার রাঢ়ীখাল ইউনিয়নের নতুন বাজার সিকদার কান্দি এলাকায় এ ঘ’টনা ঘটে। ঘ’টনার পর থেকে স্বা’মী প’লাতক রয়েছে।

ভূক্তভোগী অ’সহায় শারমীন আক্তার জানায়, দুইবছর পূর্বে মোতা মাদবরের ছেলে ফারুক মাদবরের (২৫) সাথে তার আনুষ্ঠানিক ভাবে বিবাহ হয়। বিয়ের কিছুদিন পর তিনি জানতে পারেন, বাড়ির পাশে বসবাসরত স্বা’মীর আপন মামাত বোন লাবলী আক্তারে সাথে তার পরকিয়ার সম্প’র্ক রয়েছে। আর এ বি’ষয় নিয়ে তাদের স্বা’মী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায়ই ঝ’গড়া বাধে। পরকিয়া নিয়ে কয়েকদিন আগে স্বা’মীর মা’রধরের স্বীকার হয়ে শারমীন রাগ করে দোহার থানার মৌরা খালা বাড়িতে চলে যান। ঘ’টনার দিন সকালে তার স্বা’মী ফারুক খালার বাড়ি থেকে নিজ বাড়িতে নিয়ে আসে।

রান্না ও খাওয়া শেষে রাতে স্বা’মী স্ত্রী দুজনেই শুয়ে পরি। হঠাৎ রাত প্রায় সারে ১২ টার দিকে স্বা’মী ফারুকসহ তার মামাত ভাই সজিব (২০), মামাত বোন লাভলী আক্তার (২৩) ও অপরিচিত এক ম’হিলা খাটের সাথে শারমীনের হাত পা বেঁ’ধে ফে’লেন। পরে গ্যাসের চুলায় লো’হার খু’ন্তি গরম করে তার গো’পনা’ঙ্গে ছ্যাঁকা দেয়। এতে সে অজ্ঞান হয়ে পরেন। পরে জানতে পারেন কে বা কারা তাকে অচেন অবস্থায় দোহারে থানার মৌরায় একটি রাস্তায় ফে’লে রেখে গেলে এলাকাবাসী উ’দ্ধার করে দোহার উপজে’লা স্বা’স্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

এ বি’ষয়ে প’লাতক ফারুক মাদবরের মুঠোফোনে একাধিক বার চেষ্টা করেও তার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। একই বি’ষয় সজিব এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি চার দিন ঢাকায় ছিলাম। শুনেছি আমার মামাতো ভাই ফারুক ও তার স্ত্রীর সাথে ঝ’গড়া হয়েছে।

এ ব্যপারে গৃহবধুর পিতা রাজ্জাক হাওলাদার বা’দী হয়ে শ্রীনগর থানায় একটি অ’ভিযোগ করেছেন।

এ বি’ষয়ে শ্রীনগর থানার অফিসার ই’নচার্জ মো. হেদায়াতুল ইসলাম ভূঞার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অ’ভিযোগ পেয়ে ওসি অপারেশন কামরুজ্জান ত’দন্ত করেছে। স্বা’মী ফারুক প’লাতক রয়েছে। আমরা তাকে ধরার জন্য চেষ্টা চা’লিয়ে যাচ্ছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here