স’হবাসের সময় না’রীকে দ্রু’ত উ’ত্তেজিত করতে না’রীর দে’হের ৯ টি গো’পন স্থানের নাম, সময় থাকতে শিখে নিন

0
386

মি’লনের সময় অধিকাংশ পুরু’ষ না’রীর স্ত’ন ও গো’পনা’ঙ্গ নিয়ে মেতে থাকতে পছন্দ করে। কিন্তু না’রীর দে’হের এই দুইটি অ’ঙ্গ ছাড়াও আরো ৯ টি অ’ঙ্গ আছে যেসব অ’ঙ্গে পুরু’ষের হাতের স্পর্শ পেলে না’রীরা সু’খানুভূতি লাভ করে এবং না’রীর দে’হে দ্রু’ত যৌ * ন উ’ত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

যৌ ন*তায় না’রী স’ঙ্গিনীকে অধিক আ’নন্দ দিতে পুরু’ষদের না’রীর দে’হের ৯ টি হট স্পট সম্প’র্কে সম্যক জ্ঞান রাখার প্রয়োজন। না’রী স’ঙ্গিনী বা স্ত্রীর সাথে যৌ * নতা লাভের সময় না’রীর দে’হে এই ৯টি স্থানে পুরু’ষের হাতের ছোঁয়া পেলে কিংবা স্পর্শ প্রয়োগ করলে না’রীর যৌ*নতা লাভের আ’নন্দ বেড়ে যায় বহুগুণ এবং তাঁর সাথে না’রীর কাছে ঐ পুরু’ষ স’ঙ্গিনী বা স্বা’মীর কদরও বেড়ে যায়। তাই বুদ্ধিমান পুরু’ষ স’ঙ্গিনী বা স্বা’মীর উচিৎ না’রীর দে’হের ৯টি উ’ত্তেজিত স্থানের দিকে নজর দেওয়া।

না’রীর দে’হের ৯ টি স্থানের গো’পন কথা
১। মাথার কেশ বা চুল : না’রীর কেশ তাঁর সৌন্দর্য্য বাড়াতেই শুধু সাহায্য করে না বরং তাতে পুরু’ষের হাতের স্পর্শ পেলে না’রী সু’খের সাগরে তলিয়ে যান। বিউটি পার্লারে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কেশচর্চায় শুধুমাত্র রূপ বাড়ানো হয় না, দুশ্চিন্তা প্রশমনকারী হিসেবেও কাজে দেয়। কপাল থেকে ঘাড় পর্যন্ত কেশদাম ম্যাসাজ করতে পারলে আপনার প্রিয় না’রী মজবেনই।

২। না’রীর কোমর : না’রীর কোমর এবং তার নীচের অংশ স্পর্শ করলে না’রী শ’রীরে সু’খের ঢেউ খেলে যায় । তবে ভু’ল করেও এই সময় তাঁর যৌ না* ঙ্গ স্পর্শ করবেন না। তার জন্য আরও কিছু সময় চাই।

৩। ফি’ট ম্যাসাজ : ফি’ট ম্যাসাজের কথা এতকাল গল্পেই পড়েছেন। স’ঙ্গিনীকে অসীম সু’খ দিতে পায়ের গোছ, গোড়ালি, পায়ের পাতা ও আঙুলে ম্যাসাজ করুন।

৪। না’রীর কানের লতি : স্ত্রীর কানের লতি কখনও স্পর্শ করেছেন? যদি না করে থাকেন, তাহলে এই দিকে একটু মন দিন। প্রথমে হাল্কা ভাবে আঙুল দিয়ে ছুঁয়ে যান কানের বাইরের অংশ। তারপর জিভ কাজে লাগিয়ে কানের প্রবেশদ্বার ও লতিতে স্পর্শ করুন। দেখবেন সু’খস্পর্শে শিউরে উঠছেন প্রেয়সী। সু’খের মাত্রা বাড়াতে অল্প কামড়ও বসাতে পারেন কানের লতিতে।

৫। হাতের তালু : আপনি হয়তো কোথায় ঘুরতে গিয়ে নির্জনে স্ত্রীর হাতে ধরে অনেক বসেছেন। জানেন কি, তাঁর হাতের তালুতে সুড়সুড়ি দিলে যৌ*ন উ’ত্তেজনা জা’গ্রত হয়? না’রীর যৌ* ন চেতনা বাড়িয়ে দিতে তার হাতের তালুতে সুড়সুড়ি দিন।

৬। হাটুর পিছনের অংশ : স্ত্রীর হাঁটুর পিছনের অংশে হাত বোলানোর মতো উদ্ভট চিন্তা বেশির ভাগ স্বা’মীর মাথাতেই আসে না। একবার চেষ্টা করেই দেখু’ন না! না’রীর ওই স্থানে যুগপত্‍ তর্জনী ও ঠোঁট বুলিয়ে দিতে থাকলে কয়েক মিনিটেই দেখবেন আপনার থেকে আরও কিছু আশা করছেন তিনি।
৭। পিঠের উপরের হাত : স’ঙ্গিনী পিঠের ও’পর আলতো করে হাত রাখলে একই স’ঙ্গে না’রী হৃদয়ে ভরসা ও অনুরাগের ভাব বিস্তার হয়। ঘনিষ্ঠ অবস্থায় তাঁর মেরুদ’ণ্ড বরাবর জিভ বুলিয়ে যান, দেখবে স’ঙ্গিনীর গায়ে সু’খের প্রাবল্যে কাঁটা দিয়ে উঠেছে।

৮। স্বল্প উঁচু কণ্ঠার হাড়:বহু না’রীর সৌন্দর্যে নয়া মাত্রা যোগ করে। সুযোগ পেলে সেখানে একটু চুমু খান। গ’লা ও বুকের ও’পরের অংশে হাল্কা ছোঁয়ায় না’রী হৃদয় বিগলিত হয়, জেগে ওঠে শ’রীর।

৯। ঘারের তলদেশ : ঘাড়ের তলদেশে সু’খস্পর্শ পেতে বিশ্বের বেশির ভাগ না’রীই চান। একদা জাপানে না’রীদে’হের ওই অংশটি দর্শনে পুরু’ষের যৌ*ন উ’ত্তেজনা বাড়াতে সাহায্য করত। যৌ*ন অ’ভিযানে দুঃসাহসী হয়ে স’ঙ্গীনির শ’রীরের এই অংশে মনোনিবেশ করুন। জিভের ডগা ঠিকঠাক কাজে লাগালে ভালো পুরস্কার পাবেন, নিশ্চিত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here