সাবধান! এই সময় স’হবা’স করলে আপনি পাগল হয়ে জেতে পারেন, জেনে নিন কোন সেই সময়।। (বিস্তারিত)

0
415

নর-না’রীর মি’লন মানুষের সহজাত প্রবৃত্তি.সুতরাং একে উপেক্ষা করার উপায় নাই.বিবাহের উদ্দেস্য হচ্ছে স্ত্রী-পু’রুষের সুষ্ঠু ও সহজাতভাবে মি’লনের মাধ্যমে মানবজাতির বংশ বৃদ্দি করা.এ যৌ’ন মি’লনের ও’পরেই জীবনের সকল সুখ-শান্তি নির্ভর করে.

যেমন-মি’লন সফল হলে স্ত্রী-পু’রুষ উভ’য়েই পরম লাভ করে,সমানভাবে তৃ’প্ত হলে মন মেজাজ ও স্বাস্থ্য সবই ভাল থাকে এবং দাম্পত্য জীবন চিরস্থায়ী ও চিরসুখী হয়.

অতএব যে মি’লনের দ্বারা মানবকুলের বংশ বৃদ্দি হয়ে থাকে, আর নর-না’রীর দেহ মন পাক-পবিত্র হয়ে থাকে, সেই যৌ’ন মি’লনের নিয়ম কানুনগুলো স’ম্পর্কে জ্ঞান থাকা সকলের আবশ্যক.অশিক্ষিত নির্বোধ লোকেরা এই সম্বন্ধে কোনো জ্ঞান রাখে না. তারা নিয়মের বি’রুদ্ধে স’হবা’স করে নানা প্রকারে ক্ষ’তিগ্রস্ত হয়. সৃষ্টিগত ভাবেই পু’রুষের চাইতে স্ত্রীলোকের কামশক্তি অনেক বেশি.স্ত্রীদের কামশক্তি বেশি থাকা সত্তেও তাদের কামনার অগ্নি অতি তাড়াতাড়ি নিবৃত্ত হয় না. অপরদিকে পু’রুষের কামশক্তি খুব তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে যায়.

অতএব পু’রুষের কামশক্তি জাগ্রত হওয়ার সাথে সাথে হিতাহিত জ্ঞান না রেখে স’ঙ্গম শুরু করে দিলে তাতে পু’রুষ লাভ করলেও অতৃ’প্তা থেকে মনে বিতৃষ্ণা বোধ করে.মি’লনে পূর্ণ না পেলে স্বা’মীর প্রতি তার প্রেম প্রীতির মন ভেঙ্গে যায়. মি’লনে পূর্ণ লাভ করতে হলে স্বা’মীর প্রতি উভ’য়কে সমভাবে অংশ গ্রহণ করতে হবে.
আমরা অনেকেই হয়ত ইসলামিক শরীয়ত মোতাবেক স’হবা’সের স্বাভাবিক নিয়ম বা পন্থা স’ম্পর্কে জানি না। এখানে এ
বি’ষয়ে একটু ধারণা দেয়া হলো

নর-না’রীর মি’লন মানুষের সহজাত প্রবৃত্তি.সুতরাং একে উপেক্ষা করার উপায় নাই.বিবাহের উদ্দেস্য হচ্ছে স্ত্রী-পু’রুষের সুষ্ঠু ও সহজাতভাবে মি’লনের মাধ্যমে মানবজাতির বংশ বৃদ্দি করা.এ যৌ’ন মি’লনের ও’পরেই জীবনের সকল সুখ-শান্তি নির্ভর করে.

যেমন-মি’লন সফল হলে স্ত্রী-পু’রুষ উভ’য়েই পরম লাভ করে,সমানভাবে তৃ’প্ত হলে মন মেজাজ ও স্বাস্থ্য সবই ভাল থাকে এবং দাম্পত্য জীবন চিরস্থায়ী ও চিরসুখী হয়.

অতএব যে মি’লনের দ্বারা মানবকুলের বংশ বৃদ্দি হয়ে থাকে, আর নর-না’রীর দেহ মন পাক-পবিত্র হয়ে থাকে, সেই যৌ’ন মি’লনের নিয়ম কানুনগুলো স’ম্পর্কে জ্ঞান থাকা সকলের আবশ্যক.অশিক্ষিত নির্বোধ লোকেরা এই সম্বন্ধে কোনো জ্ঞান রাখে না. তারা নিয়মের বি’রুদ্ধে স’হবা’স করে নানা প্রকারে ক্ষ’তিগ্রস্ত হয়. সৃষ্টিগত ভাবেই পু’রুষের চাইতে স্ত্রীলোকের কামশক্তি অনেক বেশি.স্ত্রীদের কামশক্তি বেশি থাকা সত্তেও তাদের কামনার অগ্নি অতি তাড়াতাড়ি নিবৃত্ত হয় না. অপরদিকে পু’রুষের কামশক্তি খুব তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে যায়.

অতএব পু’রুষের কামশক্তি জা<গ্রত হওয়ার সাথে সাথে হিতাহিত জ্ঞান না রেখে স'ঙ্গম শুরু করে দিলে তাতে পু'রুষ লাভ করলেও অতৃ'প্তা থেকে মনে বিতৃষ্ণা বোধ করে.মি'লনে পূর্ণ না পেলে স্বা'মীর প্রতি তার প্রেম প্রীতির মন ভেঙ্গে যায়. মি'লনে পূর্ণ লাভ করতে হলে স্বা'মীর প্রতি উভ'য়কে সমভাবে অংশ গ্রহণ করতে হবে. আমরা অনেকেই হয়ত ইসলামিক শরীয়ত মোতাবেক স'হবা'সের স্বাভাবিক নিয়ম বা পন্থা স'ম্পর্কে জানি না। এখানে এ বি’ষয়ে একটু ধারণা দেয়া হলো

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here