সমাজকে বুড়ো আঙুল! ৭৪ বছর ব’য়সী স্ত্রী’র স’ঙ্গে সু’খে সংসার করছেন ২১ এর যুবক

0
269

চতুর্থ বিবাহবার্ষিকী’ তাঁদের। দুজনেই দুজনকে চোখে হা’রান। চতুর্থ বিবাহবার্ষিকী’তে এসে প’রস্পরের প্রতি কোনও বিতৃষ্ণা, বির’ক্তিভাব নেই। বরং সু’খের সংসারে তাঁরা দিব্যি রয়েছেন। ২১ বছর ব’য়সী গ্যারির স্ত্রী’র ব’য়স ৭৪ বছর।

২০১৫ সালে বিয়ে করেছিলেন তাঁরা। তার পর কখন যে চারটে বছর কে’টে গিয়েছে, টেরই পাননি। সু’খে থাকলে বোধ হয় সময়ের হিসাবে থাকে না। আর ভালবাসার তো কোনও ব’য়সই হয় না।

বাঁধ’নহারা ভালবাসায় আচ্ছন্ন হয়ে রয়েছেন দুজনে। একে অ’পরের মনের মানুষ। আর কী’ চাই! সমাজ কী’ বলল, তাঁদের নিয়ে কানাঘুঁষো হল না, সেসবে দুজনের কেউই পরোয়া করেন না। ওসব নিয়ে ভাবার সময়ই নেই তাঁদের।

গ্যারির যখন ১৭ বছর ব’য়স তখনই ৭০ বছরের আমলিডার স’ঙ্গে তাঁর দেখা হয়। এর পর আলাপ। তার পর স’ম্পর্ক। দুজনের ব’য়সের ফারাক ছিল সেই সময় ৫৪ বছর। কিন্তু এই ব্যাপারটা নিয়ে দুজনের কেউই তেমন চিন্তিত ছিলেন না।

ইনস্টাগ্রামে নিজেদের চতুর্থ বিবাহবার্ষিকী’র কথা জানিয়েছেন গ্যারি ও আলমিডা। গ্যারি তাঁর প্রিয়তমা স্ত্রী’র জন্য লেখেন, ”তোমা’র স’ঙ্গে দেখা হওয়ার আগের দিন পর্যন্ত আমি জানতাম না কাউকে সত্যি এতটা গভীরভাবে ভালবাসা যায়!

আমি আর তুমি প্রথম থেকেই তো উত্থান-পতনের মধ্যে দিয়ে চলে এসেছি। একস’ঙ্গে সেসব কাটিয়েছি। তোমা’র প্রতি আমা’র ভালবাসা সমুদ্রের থেকেও গভীর। তোমাকে আমি নিঃশর্ত ভালবাসি।

জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত এভাবেই তোমা’র যত্ন নিতে চাই। আমি প্রতিটা দিন কঠিন পরিশ্রম করছি আমাদের স্বপ্ন ও লক্ষ্যগুলো পূরণ হয়। তোমা’র পাশেই থাকতে চাই।”

ভালবাসা এখানে নিঃশর্ত। ভালবাসার সংজ্ঞাটাই এখানে একেবারে আলাদা। সমাজের চোখরাঙানি যেখানে স’ম্পর্কে বা’ধা দিতে পারে না। গ্যারি ও আলমিডা যেন এক নতুন পৃথিবীর বাসিন্দা।

যে পৃথিবীতে গতে বা’ধা নিয়ম নেই। গ্যারি আর আলমিডা নিজেরাই নিয়ম বানান। নিজেদের ভাল রাখার নিয়ম তাঁরা নিজেরাই ঠিক করে নেন। ব’য়স সেখানে একটা সংখ্যা। এর বেশি কিছু নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here