হাসপাতাল ছেড়ে পালিয়েছেন সেই আলোচিত সুমন ব্যাপারী ?

0
158

বু’ড়িগঙ্গা নদীতে ল’ঞ্চডুবির ঘ’টনায় ১৩ ঘণ্টা পর জীবিত উ’দ্ধার সুমন বেপারীকে নিয়ে চা’ঞ্চল্য এখনও থেমে নেই। গত কয়েকদিনে সুমন ব্যাপারীর প’লাতক থাকার ঘ’টনাকে ‘গু’জব’ বলে উড়িয়ে দিলেন তার পরিবার। জানালেন, তিনি পা’লিয়ে যান নি, হাসপাতালে চি’কিৎসাধীন আছেন।

সুমন বেপারীর বড় ভাই শাহীন বেপারী বলেন, ‘আমার ভাই সুমন পা’লিয়ে যাবে কেন? সুমন ঢাকার স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও মিটফোর্ড হাসপাতালের ৩নং ভবনের ১নং ওয়ার্ডে ১৪নং বেডে ভর্তি রয়েছে। চাইলে দেখে যেতে পারেন।’ হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাত ১০টা ৪০ মিনিটে ৩নং ভবনে ভর্তি করা হয় তাকে। এর আগে উ’দ্ধার হওয়ার পর তাৎ’ক্ষণিক ২নং ভবনের মেডিসিন বিভাগে ভর্তি করা হয়েছিল সুমনকে।

সুমনের ভাই শাহীন বেপারী আরও বলেন, ভাইকে নিয়ে নানা গু’জব ছড়ানো হচ্ছে। যে যা বলার বলুক। আল্লাহর রহমতে ভাই বেঁচে ফিরেছে এতেই শুকরিয়া। সবার কাছে দোয়া চাই আমার ছোট ভাই সুমন যেন তাড়াতাড়ি পরিপূর্ণ সু’স্থ হয়ে ওঠে। তবে বার্তা সং’স্থা ইউএনবি’র অনু’সন্ধানে বেড়িয়ে এসেছে ভি’ন্ন ত’থ্য। ইউএনবি’র প্রতিনিধি সুমনের গ্রামের বাড়ি মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ি উপজে’লার আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়নে সরেজমিন পরিদর্শনে পায় ভিন্ন ত’থ্য।

সেখানে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বেপারী এবং সুমনের বড় ভাই শাহাজাহান বেপারী জানান, গত বুধবার সুমন গ্রামের বাড়িতে আসেন এবং বৃহস্পতিবার সারাদিন বাড়িতে ছিলেন।

ঢাকা থেকে জরুরি ফোন পেয়ে পরদিন শুক্রবার আবার ঢাকায় যায় এবং মিটফোর্ড হাসপাতালে ভর্তি হন। আব্দুল্লাহপুরে সুমনের গ্রামের আরও অনেকেই একই কথা বলেন ইউএনবি’র প্রতি’নিধিকে।উল্লেখ্য, গত ২৯ জুন সকালে মু’ন্সিগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা মর্নিং বার্ড লঞ্চ’টি সদরঘাটের অদূরে শ্যামবাজার ময়ূর-২ ল’ঞ্চের ধা’ক্কায় ডু’বে যায়।

ঘ’টনার পর নদী থেকে ৩৪ জনের ম’রদে’হ উ’দ্ধার করে উ’দ্ধারকারী দল। ঘ’টনার দিন রাত ১০টার দিকে ল’ঞ্চ’টি টেনে তোলার সময় জী’বিত অ’বস্থায় উ’দ্ধার করা হয় সুমন বেপারীকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here