ব’ন্দি ঘরে কেমন আছ বাবা, অনেক দিন তোমার বুকে ঘুমাই না

0
712

‘ব’ন্দি ঘরে কেমন আছ বাবা? আমি তোমার সঙ্গে ঘুমাতে চাই। তোমার সঙ্গে ঘুমাতে অনেক ভালো লাগে বাবা। অনেক দিন তোমার সঙ্গে ঘুমাই না। একা একা ঘুমাতে আমার অনেক ক’ষ্ট হয় বাবা।’

জানালার ওপাশে দাঁড়িয়ে বাবাকে লক্ষ্য করে কথাগুলো বলছিল সাড়ে তিন বছরের আলিশাবা রহমান ইবতিদা। উত্তরে বাবা বললেন, ‘এইতো সোনামণি। শিগগিরই আমরা একসঙ্গে ঘুমাব মা। তোমাকে বুকে নিয়ে ঘুমাব।’

এরই মধ্যে আলিশাবা ও তার বাবার আবেগঘন কথোপকথনের এই ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। বাবা-মেয়ের কথা শুনে অনেকেই অশ্রুসিক্ত হয়েছেন।

আলিশাবার বাবা আব্দুর রহমান মুকুল বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানা পু’লিশের ভারপ্রা’প্ত কর্মকর্তা (ওসি-ত’দন্ত)। দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে ক’রোনাভা’ইরাসেে আ’ক্রান্ত হয়েছেন তিনি। পরিবার ও প্রিয়জনদের ক’রোনাভা’ইরাসেের সং’ক্র’মণ থেকে দূরে রাখতে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী বাসার একটি রুমে নিজেকে ব’ন্দি করে রেখেছেন তিনি।

ভিডিওতে দেখা যায়, আলিশাবা তার বাবার সঙ্গে কথা বলছে। আলিশাবা বাবাকে বলে, ‘বাবা তুমি কেমন আছ? আমি তোমার সঙ্গে ঘুমাতে চাই। তোমার সঙ্গে ঘুমাতে অনেক ভালো লাগে বাবা। অনেকদিন তোমার সঙ্গে ঘুমাই না। একা একা ঘুমাতে আমার অনেক ক’ষ্ট হয় বাবা।’

সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে দায়িত্বপালন করছেন পু’লিশ কর্মকর্তা আব্দুর রহমান মুকুল

উত্তরে আলিশাবার বাবা বলেন, ‘এইতো সোনামণি। শিগগিরই আমরা একসঙ্গে ঘুমাব মা। তোমাকে বুকে নিয়ে ঘুমাব। তোমার ক’ষ্ট হয় মা। আলিশাবা বলে হ্যাঁ। বাবা বলেন, কোথায় ক’ষ্ট হয় মা। আলিশাবা বলে বুকে ক’ষ্ট হয় বাবা।’

আবেগঘন ৫৫ সেকেন্ডের এই ভিডিও বরিশাল মেট্রোপলিটন পু’লিশের ‘বিএমপি মিডিয়া সেল’ নামে ফেসবুক পেজে শুক্রবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে পোস্ট দেয়া হয়। কয়েক ঘণ্টার মধ্যে ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে যায়।

শনিবার দুপুর ১টা পর্যন্ত এই ভিডিও সাড়ে আট হাজার মানুষ দেখেছে। ১৪৪ জন মন্তব্য করেছেন।

অনেকেই বাবা-মেয়ের এই ভালোবাসাকে সম্মান জানিয়েছেন। শিগগিরই বাবা-মেয়ে কোলে তুলে আদর করবে, সে দোয়াও করেছেন কেউ কেউ।

ক’রোনার সং’ক্র’মণ ঠে’কাতে বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানা পু’লিশের সদস্যদের নিয়ে মাঠে রয়েছেন আব্দুর রহমান

একজন বলেছেন, ‘এটা বেদনার ঘটনা। এটি মর্মস্পর্শী। আমার আশা, বাবা দ্রুত সুস্থ হয়ে মেয়েকে জড়িয়ে ধরবে।’

আরেকজন মন্তব্য করেছেন, ভিডিও দেখার পর আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েছি। চোখের পানি ধরে রাখা মুশকিল। বোঝা যাচ্ছে পু’লিশ কর্মকর্তার পরিবার কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। দোয়া করি সবকিছুই দ্রুত ঠিক হয়ে যাবে।

পু’লিশ কর্মকর্তা আব্দুর রহমান মুকুলের স্ত্রীর নাম তাসমিম ত্রোপা। ২০০৯ সালে তারা বিয়ে করেন। বিয়ের পর তারা নগরীর গোরেস্থান রোডের একটি বাসায় বসবাস শুরু করেন। বিয়ের সাত বছর পর কোলজুড়ে আসে ফুটফুটে শি’শুস’ন্তান আলিশাবা। সুন্দরভাবে জীবন চলছিল তাদের। ক’রোনার কারণে হঠাৎ এলোমেলো হয়ে গেল সবকিছু।

বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানা পু’লিশের ভারপ্রা’প্ত কর্মকর্তা (ওসি) নুরুল ইসলাম বলেন, আব্দুর রহমান মুকুল কর্তব্যপরায়ণ একজন পু’লিশ কর্মকর্তা। ক’রোনা পরিস্থিতির মধ্যেও তিনি জনগণের সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত ও আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সদস্যদের তদারকি ও মা’মলার ত’দন্তকাজ চা’লিয়ে গেছেন। দায়িত্বপালন করতে গিয়েই তিনি ক’রোনায় আ’ক্রান্ত হয়েছেন। দোয়া করি দ্রুত সুস্থ হয়ে তিনি কজে ফিরবেন।

ঈদের আগে মার্কে’টে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করছেন তিনি

হোম আইসোলেশনে থাকা আব্দুর রহমান মুকুল বলেন, ২৬ মে থানায় ছিলাম। দুপুরে কিছুটা অ’সুস্থবোধ করি। বাসায় ফিরে বিশ্রাম নিই। হঠাৎ অনুভব করি শ’রীরের তাপমাত্রা বৃ’দ্ধি। থার্মোমিটার দিয়ে মেপে দেখি তাপমাত্রা ১০২। রাতে জ্বর বেড়ে যায়। সঙ্গে দেখা দেয় কাশি ও গ’লাব্য’থা। স’ন্দেহ হয়, ক’রোনা না তো। সেদিন থেকেই বাসার মধ্যে আলাদা রুমে থাকা শুরু করি। জ্বর ও গ’লাব্য’থা বাড়লে ২৯ মে ক’রোনা টেস্ট করাই। দুদিনের মাথায় আ’ক্রান্ত হওয়ার খবর জানতে পারি।

কীভাবে আ’ক্রান্ত হলেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ঈদের আগে মার্কে’টে ও বাজারে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে টানা কয়েকদিন দায়িত্বপালন করেছি। এ সময় ভিড় ঠে’কাতে মানুষের কাছাকাছি যেতে হয়েছে। হয়তো তখন সংক্রমিত হয়েছি।

পু’লিশ কর্মকর্তা আব্দুর রহমান মুকুল বলেন, এক ছাদের নিচে থাকলেও ২৬ মে থেকে একটি রুমে আলাদা থাকছি। মেয়েটাকে কাছে পেলেও ছুঁতে পারছি না। তাকে দেখতে পাব, ধরতে পারব না। এটা আমার জন্য সবচেয়ে কঠিন। ওকে একটু কোলে নিতে মনটা ছটফট করে। পেশার কারণে জীবনে অনেক কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখি হয়েছি। তবে এত কঠিন বাস্তবতা সামনে আসবে ভাবিনি।

আব্দুর রহমান মুকুল বলেন, আলিশাবাকে ঘিরেই আমার সব স্বপ্ন। তাকে ঘিরেই আমার দুনিয়া। রাতে দায়িত্বপালন করে বাসায় না ফেরা পর্যন্ত জেগে থাকতো আলিশাবা। বাসায় ফিরলে ছুটে এসে কোলে উঠতো। রাতে আমার বুকে মাথা দিয়ে ঘুমানো আলিশাবার অভ্যাস হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু গত ১২ দিন আলিশাবা থেকে দূরে থাকতে হচ্ছে। আলিশাবার ক’ষ্ট দেখ নিজেকে ঠিক রাখা কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আব্দুর রহমান মুকুল বলেন, আলিশাবা প্রথম রাত অনেক কেঁদেছে। বাবাকে ছাড়া সে কিছুতেই ঘুমাবে না। তবে এখন কিছুটা সামলে নিয়েছে।

এখন জানালার ওপাশে দাঁড়িয়ে আলিশাবা বলে, আল্লাহ ক’রোনা উঠিয়ে নাও। বাবাকে সুস্থ করে দাও। বাবা সুস্থ হলে মা আর আমি ঈদের জামা পরে সেজে প্রজাপতির দেশে বেড়াতে যাব।

পরিবারের সঙ্গে পু’লিশ কর্মকর্তা আব্দুর রহমান মুকুল

আব্দুর রহমান মুকুল বলেন, এই সময়টা বড় কঠিন। তবে এই সময়ে অনেক মানুষ, সহযোগিতা করেছে আন্তরিকভাবে। কয়েকজন সহকর্মী রান্না করে খাবার রেখে গেছেন, কেউবা বাজার করে দিয়ে গেছেন। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা নিয়মিত খোঁজখবর নিচ্ছেন। তারা সাহস জোগাচ্ছেন। কিছুটা ভালো আছি।

বরিশাল মেট্রোপলিটন পু’লিশের কমিশনার শাহাবুদ্দিন খান বলেন, আব্দুর রহমান মুকুলের সঙ্গে আমিসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা যোগাযোগ রাখছেন। পু’লিশ হাসপাতালের চিকিৎসকরা তার স্বাস্থ্যের খোঁজখবর নিচ্ছেন। তিনি সুস্থ আছেন। তিনি যাতে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা পান সে বি’ষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, জনগণের সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত ও আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে মেট্রোপলিটন পু’লিশের প্রায় দুই হাজার সদস্য দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন। নগরীর সর্বত্র নিয়মিত টহল, ক’রোনায় আ’ক্রান্ত হয়ে মা’রা যাওয়াদের জানাজা ও দাফনের ব্যবস্থাও করছে পু’লিশ। পাশাপাশি ক’রোনা শনাক্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেয়া,

কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা, শ্রমজীবী মানুষকে সহায়তা, রাস্তায় জী’বাণুনাশক ছিটানো, অ’সহায়-কর্মহীন মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাবার পৌঁছানোসহ ক’রোনা প্রতিরোধে যে মহাযজ্ঞ; তাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন পু’লিশ সদস্যরা। দায়িত্বপালন করতে গিয়ে এ পর্যন্ত কর্মকর্তাসহ বরিশাল মেট্রোপলিটন পু’লিশের ৯৮ জন সদস্য ক’রোনায় আ’ক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ২৪ ক’রোনামুক্ত হয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here