১০ মাসের বাচ্চাকে ধ’র্ষণ করে গুগলে সার্চ বাবার ‘ম’রে গেছে কিনা বুঝবো কীভাবে?’

0
15

জ’ন্ম’দাতার নারকীয় লালসার শি’কার হল ১০ মাসের স’ন্তান। শুধু তাই নয়, শি’শুটি নড়াচড়া বন্ধ করে দেয়ায় তিনি গুগলে সার্চ করে দেখতে থাকে, ‘ম’রে গেছে কিনা বুঝবো কীভাবে?’

মেট্রোর একটি প্রতিবেদন অনুসারে, নিজের মেয়েকে ধ’র্ষণে অ’ভিযুক্ত অস্টিন স্টিভেন্স একজন ফুটবল কোচ। গু’রুতর এই অ’ভিযোগ পেতেই তাকে গ্রে’ফতার করেছে পু’লিশ। সে’ক্সুয়াল অ্যাসল্ট, সদ্যজাত শি’শুকে যৌ’ন নি’পীড়নসহ একাধিক ধারায় মা’মলা দায়ের হয়েছে অস্টিনের নামে।

পু’লিশ জানিয়েছে, অ’ত্যাচারের তীব্রতায় মা’রাত্মক য’ন্ত্রণা ও র’ক্তক্ষরণের কারণে ঘ’টনার দুইঘণ্টার মধ্যেই মৃ’ত্যু হয় একরত্তি মেয়েটির। অ’ভিযুক্ত ২৯ বছরের অস্টিনের সার্চ হিস্ট্রি ঘাঁটতেই উঠে এসেছে আরো বি’স্ফোরক ত’থ্য। নিজের মেয়েকে ধ’র্ষণের পর গুগলে অনেক কিছু সার্চ করেন স্টিভেন।

‘মেয়ে ম’রে গেছে কেন বুঝব কীভাবে?’ সার্চ ছাড়াও গুগল ইঞ্জিনের অ্যাক্টিভিটি হিস্ট্রি দেখেই অনুমান করা যাচ্ছে স্টিভেন আসলে নিজের কুকীর্তি লুকোতে মেয়েকে একেবারে শেষ করে দেয়ার পরিকল্পনা করেন। গুগল ঘেঁটে খুঁজে বের করতে চেয়েছিল প্রমাণ না রেখে শ্বা’সরো’ধের উপায।

হাসপাতাল থেকে একটি ফোন পেয়ে ঘ’টনার ত’দন্তে নামে মা’র্কিন পু’লিশ। সেখানেই উঠে আসে বি’স্ফোরক ত’থ্য। বাচ্চাটি আসলে তাঁর ঠাকুমা আর দাদুর কাছে থাকতো। জলের স’মস্যার জন্য বাবার বাড়িতে আনা হয়েছিল। তাই ওইদিন সে বাবার দায়িত্বেই ছিল। ধ’র্ষণের পর স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসা হয়েছিল বাচ্চাটিকে।

হাসপাতালের চিকিৎসকদের অস্টিন বলে, মেয়ে আচমকা নড়াচড়া বন্ধ করে দিয়েছে তাই আনা হয়েছে। কিন্তু চিকিৎসকেরা পরীক্ষা করতেই আসল ঘ’টনা বুঝতে পারেন। ১০ মাসের শি’শুর উপর এমন নৃ’শংস যৌ’ন নি’র্যাতনের ঘ’টনার সমস্তটাই চিকিৎসকেরাই পু’লিশকে জানান।

প্রথমে যদিও জেরায় হ’ত্যার অ’ভিযোগ অস্বীকার করেছে অস্টিন। সে জানিয়েছে, তার শি’শুর শ্বাস এমনিই বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। তবে ময়না ত’দন্তের রিপোর্টেও মা’রাত্মক যৌ’ন নি’র্যাতনের প্রমাণ মিলেছে। পু’লিশ জানিয়েছে, ভ’য়ঙ্কর এই ঘ’টনা ঘটানোর পর গুগল সার্চের পাশাপাশি অস্টিন সোশ্যাল মিডিয়ায় দুই ম’হিলার স’ঙ্গে যৌ’নতা ভরা চ্যাট চালিয়ে যাচ্ছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here