টিউশনির নাম করে ছাত্রদের বিছানায় ডাকতেন শিক্ষিকা! সচেতন হোন এবং স’ন্তানকে নিরাপদে রাখু’ন;

0
67

টিউশনির নাম করে ছাত্রদের বিছানায় ডাকতেন শিক্ষিকা! সচেতন হোন এবং স’ন্তানকে নিরাপদে রাখু’ন – বাবা মায়ের স’ঙ্গে তাদের ছেলেমে’য়েদের যেমন সম্প’র্ক,

ঠিক তেমনই একটি ছাত্র ও শিক্ষিক বা শিক্ষিকার সম্প’র্ক। মা বাবার পর শিক্ষক-শিক্ষিকারই আমাদের দ্বিতীয়অবিভাবক। শিক্ষিক শিক্ষিকা আমাদের গুরুজন, তাঁদের কাছে শিক্ষা লাভ করে আমরা জীবনের পথে এগিয়ে চলি। আজ থেকে বহুকাল আগে ছাত্র শিক্ষক-শিক্ষিকার প্রতি ছাত্র ছাত্রীরা এক অন্য শ্রদ্ধা, মর্যাদা ছিল।

কিন্তু এখনকার দিনে তা ধীরে ধীরে কমে যেতে চলেছে। তবে বলা বাহুল্য বর্তমান সমাজে এখনো সেরকম ছাত্র ছাত্রী রয়েছে যাদের কাছে তাঁদের শিক্ষক-শিক্ষকাদের প্রতি শ্রদ্ধা, মর্যাদা ঠিক আগের মতোই রয়েছে। আমাদের এই ভারতবর্ষে এমনটাই হয়ে আসছে। ইদানিং শিক্ষিকা এবং এক ছাত্রের এক ঘ’টনা সমাজের সামনে আসে। যে ঘ’টনা বর্তমান ছাত্র এবং শিক্ষিক-শিক্ষিকার সম্প’র্কের অ’বনতি ঘটায়। এই আধুনিক যুগে কে ছাত্র আর কে শিক্ষিকা সেটা কেউ মানতেই চায় না।

বর্তমানে একটি ছাত্রের স’ঙ্গে তার শিক্ষিকার এবং ছাত্রীর স’ঙ্গে শিক্ষকের প্রে* মের কথা প্রায়ই শোনা যায়। খবরের শিরোনামে এমন ঘ’টনা এখন সাধারণ ব্যাপার হয়ে উঠেছে। ঠিক সেইরকমই কলম্বিয়ার মেডেলিনের ইওকাসতা নামের চল্লিশ বছরের উর্ধে এক স্কুল শিক্ষিকা, তার কাছে পড়তে আসা ছাত্রদের কে পরীক্ষায় ভালো ফল করিয়ে দেওয়ার জন্য, একটি মাত্রই শর্ত দিতেন। আর শর্তটি হলো তার বাড়িতে তার শয্যা স* ঙ্গী হতে হবে। পরীক্ষায় ভালো ফল আমরা সবাই করতে চায়।

আর তার জন্য ছোট খাট শর্ত তো আমরা মেনে নিতেই পারি। যেমন ভালো ফল করলে চকলেট অথবা কেক খাওয়াতে হবে, কিংবা একদিন পার্টি দিতে হবে। তা বলে এমন শর্ত? শুধু পাশ নয় পরীক্ষা তে ভালো নাম্বার পাইয়ে দেওয়ার লোভ দেখিয়েও ছাত্রদের কে নিজেদের বাড়িতে ডেকে নিতেন ওই শিক্ষিকা।

এমনকি তার এই প্রস্তাবে রাজি না হলেও রয়েছে স’মস্যা। সেটা হল ভালো নাম্বার পাইয়ে দেবার তো দূরের কথা উল্টে ফেল করিয়ে দেবার কথা শোনাতেন তিনি। দীর্ঘ দিন ধরে ওই শিক্ষিকা এইঅ* পকর্ম চা’লিয়ে গেলেও, তা কারো নজরে আসেনি। তবে তিনি প্রথম ধরা পড়েন এক ছাত্রের মাধ্যমে।

পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই ছাত্র তার অভিভাবকদের জানায়, যে তাকে ও প্রস্তাব দিয়েছিল এই শিক্ষিকা, কিন্তু ছাত্র তার প্রস্তাবে কোনোরকম সারা দেননি। তাই তাকে পরীক্ষাতে ফেল করিয়ে দেবার কথা বলেন ইওকাসতা নামের ওই শিক্ষিকা। প্রলোভন দেখানোর জন্য ওই শিক্ষিকা ছাত্রের মোবাইলে যেসব খা* রাপ ছবি পাঠিয়েছিলেন, সেগুলোও তার পরিবারকে দেখিয়ে দেয় ওই ছাত্র। ছাত্রদের ইওকাসতা যেসব ছবি পাঠাতেন তা বর্ণনার যোগ্য নয়।

ঘ’টনাটি প্রকাশ পাওয়ায় পর ওই শিক্ষিকার স্বা’মী তাকে ডিভোর্স দিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু তাতেও শেষ রক্ষা হয়নি। ঘ’টনা প্রকাশ্যের পর ১৬-১৭ বছর ব’য়সী অনেক ছাত্র সাহস পেয়ে শিক্ষিকার বি’রুদ্ধে মুখ খোলে। ফলে বি’ষয়টি আ’দালতের দরজায়ও পৌঁছে যায়। ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম দি ডেইলি মাইলের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ওই স্কুলে শিক্ষিকা কে শা* রীরিক হ’য়রানির অ’ভিযোগে ৪০ বছরের কা* রাদ’ণ্ড দিয়েছেন আ’দালত।

পরে ছাত্রদের কাছে জি’জ্ঞাসাবাদ করলে জানা যায়, বহুদিন থেকেই এই অ* পকর্ম করে আসছিলেন ওই শিক্ষিকা। নিজের যৌ* ন ক্ষুদা মেটাতে ওই শিক্ষিকা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বিশেষ করে ছাত্রদের ফোন করে তার বাড়ি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here