ম’হিলা হো’স্টেলের ১০ অজানা কথা

0
83

ম’হিলা হেস্টেল, এটা এমন এক ঠিকানা যেখানে স্বাধীনতা, মজা আর ফ্যাশনের সকল বি’ষয়ই তৈরি হয়৷ পরিবারের আড়ালে থাকার কারণে এমন অনেক কাজ করতে দেখা যায় যে বি’ষয়গুলোতে পরিবারের অপত্তি থাকেতে পারে।

জেনে নিন গার্লস হোস্টেলের ১০টি অজানা কথা৷১. সেলফি টাইম: গার্লস হোস্টেলে থাকা মেয়েদের সবচেয়ে ভাল টাইমপাস হল সেলফি তোলা৷ কখনও একার বা কখনও সকলে মিলে গ্রুফিং তোলাই তাদের বেশি পছন্দ। আর এই ভাবেই কেঁটে যায় তাদের অবসর সময়৷

২. সম্প’র্কের রসায়ন: বাড়ি ঘর ছেড়ে একা থাকতে আসা মেয়েদের সবচেয়ে ভরসার মানুষ হয়ে ওঠে তার রুমমেট৷ এই রুমমেটরাই তখন মেয়েটির ভালো বন্ধু হয়ে ওঠে৷ নতুন প্রেম বা প্রেমে ভাঙন সববি’ষয়েই রুমমেটরা জ্ঞান দিয়ে থাকেন৷

৩. এক্সারসাইজ সেশন: হোস্টেলে বসেই মেয়েরা একে অপরকে নিয়ে পিএনপিসিতে মেতে ওঠেন৷ কে মো’টা কে রো’গা এই নিয়ে তাদের অলোচনা হয় দীর্ঘখন৷ এবার কেউ যদি বলে এক্সারসাইজ করা জরুরী তাহলে আর কথা নেই৷ গোটা হোস্টেল তখন যোগ গুরু হয়ে ওঠে৷ কিন্তু সবচেয়ে মজার বি’ষয় হল এক সাপ্তাহের মধ্যেই শ’রীর চর্চা কেবল কথাতেই থেকে যায়৷

৪. পছন্দ নয় হোস্টেলের খাবার: প্রতিদিন গার্লস হোস্টেলের ভে’তরে ন্যাশনাল ইস্যু হয়ে ওঠে খাবারের বি’ষয়৷ কখনও ডালে লবন বেশি তো কখনও আধ সেদ্ধ চাল নিয়েই চলে তাদের তর্ক৷

৫. ফোনালাপ: হোস্টেলের প্রতিটা কোণে একটা দৃশ্য একেবারে কমন৷ হোস্টেলের বারান্দায় অথবা কোণাগুলোতে প্রায়ই একজনকে দেখা যাবে ফোনে কথা বলতে৷ তবে তা অবশ্যই দু-চার মিনিটের ব্যাপার নয়৷ রাত গড়িয়ে সকাল হয়ে গেলেও তাদের কথা শেষ হওয়ার নয়৷

৬. অনলাইন শপিং: হোস্টেলে থাকা মেয়েরা যে কি পরিমাণে অনলাইন শপিং করেন তা কল্পনার অতীত৷ কেউ একজন যদি ভু’ল করেও বলেন যে অমুক সাইটে জুতোয় ছাড় দিচ্ছে, ব্যস সকলে মিলে ল্যাপটপ বা মোবাইলে বুকিং শুরু করে দেবেন৷

৭. পোষাক বদল: প্রতিদিনই মেয়েরা তার আলমারির সামনে দাঁড়িয়ে অন্তত ১০ মিনিট ভাবেন আজ কি পড়ব? ফাইনালি যখন কিছুই পছন্দ মতো হয় না তখন নিজের আলমারি ছেড়ে তার বান্ধবীর আলমারীতে উঁকি মা’রা শুরু করেন৷ শুরু হয় পোষাক আদান-প্রদান৷৮. ঘরসজ্জা: হোস্টেলের ঘর কেউ কেউ এমন ভাবে সাজান তাতে দেখলে মনে হবে তারা সারাজীবন ওই ঘরেই থাকবেন৷ আর ঘর সাজানোর সবচেয়ে সাধারণ বস্তু হল পরিবার আর বন্ধুদের স’ঙ্গে তোলা বিভিন্ন কায়দার ছবি৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here