স’রকারের সি’দ্ধান্তের অপেক্ষায় খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা

0
43

দু’র্নীতির মা’মলায় সাজাপ্রা’প্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্থায়ী মুক্তি চেয়ে স্ব’রা’ষ্ট্র ম’ন্ত্রণালয়ে করা আবেদনের ও’পরই ভরসা রাখতে চান তার আইনজীবীরা। খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা মনে করছেন, এর আগে স’রকারের নির্বাহী আদেশে খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিত হয়েছে। সেই ধারাবাহিকতায় খালেদা জিয়ার পরিবার এবারও স’রকারের কাছে তার স্থায়ী জা’মিনের আবেদন করেছে। স’রকার চাইলে সাজা মওকুফও করতে পারে। এখানে আ’দালতের চেয়ে স’রকারের ভূমিকাই মুখ্য। তাই তারা স’রকারের সি’দ্ধান্তের প্রতীক্ষায় আছেন।

তবে দু’র্নীতি দ’মন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেছেন, আ’দালতের আদেশ ছাড়া স’রকারের কোনো সি’দ্ধান্ত দেওয়ার এখতিয়ার নেই। এদিকে পরিবারের পক্ষ থেকে খালেদা জিয়ার স্থায়ী মুক্তির জন্য করা আবেদনটি স্ব’রা’ষ্ট্র ম’ন্ত্রণালয় থেকে আইন ম’ন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। স্ব’রা’ষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, আবেদনটি পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য আইন ম’ন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। আইনি দিক বিচার-বিশ্নেষণ করে পরবর্তী সি’দ্ধান্ত নেওয়া হবে। এর আগে সাময়িক মুক্তি দেওয়ার সময় আইন ম’ন্ত্রণালয়ের সুপারিশ বিবেচনায় নিয়েছিল স্ব’রা’ষ্ট্র ম’ন্ত্রণালয়। এ প্রস’ঙ্গে আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক জানান, তিনি এ ধরনের কোনো আবেদনপত্র হাতে পাননি। পাওয়ার পর যাচাই-বাছাই করে সি’দ্ধান্ত জানাবেন।

বিএনপি মহাস’চিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সংবাদ মাধ্যমকে জানান, খালেদা জিয়ার শা’রীরিক অবস্থা ভালো নয়। এখানে ক’রোনার কারণে তার উন্নত কোনো চিকিৎসা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে তার শা’রীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে না। এসব বি’ষয়ে বিদেশে চিকিৎসকদের স’ঙ্গে তাদের কথা হয়েছে। এখন বাইরে চিকিৎসার বি’ষয়টি সম্পূর্ণ খালেদা জিয়ার ই’চ্ছার ও’পর নির্ভর করবে। তিনি বাইরে চিকিৎসা নিতে চান কিনা কিংবা বিদেশে চিকিৎসা নিতে যাওয়ার জন্য কোনো সুযোগ তৈরি হচ্ছে কিনা, এসব বি’ষয় নির্ভরশীল।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেওয়া হয়েছিল উন্নত চিকিৎসার জন্য। কিন্তু ক’রোনার কারণে তা হয়নি। তাই স’রকার স্বাভাবিক কারণে খালেদা জিয়ার সাজা সম্পূর্ণভাবে মওকুফ করে দিতে পারে।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী দলের যুগ্ম মহাস’চিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন গতকাল রাতে চেয়ারপারসনের বাসায় যান। বাসা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, এর আগেও খালেদা জিয়ার পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে স’রকার তার নির্বাহী আদেশে সাজা স্থগিত করে সাময়িক মুক্তি দিয়েছে। এবারও তার পরিবার আবেদন করেছে। এখন তার মুক্তির বি’ষয়টি সম্পূর্ণ স’রকারের এখতিয়ারে পড়ে। দেশের বাইরে নিয়ে খালেদা জিয়ার চিকিৎসার প্রয়োজন।

তবে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেন, আ’দালতের আদেশ ছাড়া স’রকারের কোনো সি’দ্ধান্ত দেওয়ার এখতিয়ার নেই। আ’দালতের অনুমতি ছাড়া স’রকার চিকিৎসার জন্য কাউকে বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দিতে পারে না। আইনের দৃষ্টিতে এ ধরনের আবেদনগুলো কোনোমতেই গ্রহণযোগ্য নয়।

গত মঙ্গলবার খালেদা জিয়ার স্থায়ী মুক্তি চেয়ে স্ব’রা’ষ্ট্র ম’ন্ত্রণালয়ে আবেদন করে তার পরিবার। গণমাধ্যমকে বি’ষয়টি নিশ্চিত করে স্ব’রা’ষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানান, মুক্তির বি’ষয়ে পরবর্তী কার্যক্রমের জন্য চিঠি পাঠানো হয়েছে আইন ম’ন্ত্রণালয়ে। দু’র্নীতির দুই মা’মলায় দ’ণ্ডপ্রা’প্ত খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতাদেশের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই স্থায়ী মুক্তির আবেদন করেন তার ছোটভাই শামীম এস্কান্দার।

গত ২৫ মার্চ দুই শর্তে স’রকারের নির্বাহী আদেশে সাজা স্থগিতাদেশের পর ছয় মাসের জন্য মুক্তি পান খালেদা জিয়া। সেই মুক্তির মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর। দু’র্নীতির মা’মলায় ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি দ’ণ্ডিত হয়ে কা’রাগারে যান খালেদা জিয়া। এর পরই অ’সুস্থতার কারণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয় সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here