হাসপাতাল থেকে স’রকারি ও’ষুধ বাসায় নিতে গিয়ে হাতেনাতে ধ’রা খেলেন নার্স

0
395

ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজে’লা স্বা’স্থ্য কমপ্লেক্স থেকে রো’গীদের জন্য সরবারহকৃত বিভিন্ন ধরনের ৪৮ পাতা ও’ষুধ গো’পনে বাসায় নিতে গিয়ে স্থানীয়দের হাতে ধ’রা খেলেন হাসপাতা’লের নার্স তৃ’প্তি রায়। তার বি’রুদ্ধে এর আগেও স’রকারি ও’ষুধ বাসায় নিয়ে বাইরে বিক্রি করার অ’ভিযোগ রয়েছে বলে জানায় স্থানীয়রা।

অ’ভিযু’ক্ত তৃ’প্তি রায় বোরহানউদ্দিন উপজে’লা স্বা’স্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র স্টাফ নার্স হিসেবে কর্ম’রত থাকার সুযোগে এ অ’পকর্ম করে আসছে। রোববার দুপুরের হাসপাতাল থেকে বিভিন্ন ধরনের ও’ষুধ বাড়ি নেয়ার পথে এলাকাবাসী তাকে বা’ধা দেয়। স্থানীয়দের বা’ধার মুখে বাসায় না গিয়ে পুনরায় হাসপাতা’লে এসে স্টোর কিপারের কাছে ও’ষুধগুলো ফিরিয়ে দেয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, তৃ’প্তি রায় দীর্ঘ দিন ধরে বোরহানউদ্দিন উপজে’লা স্বা’স্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র স্টাফ নার্স হিসেবে কাজ করছেন। যার কারণে স’রকারি ওই প্রতিষ্ঠানটির সকলের সাথে তার সুসর্ম্পক তৈরি হয়। এই সুবাদে তিনি বিভিন্ন সময় হাসপাতাল থেকে অ’বৈধভাবে ও’ষুধ বাড়ি নিয়ে যেতেন।

একই ভাবে রোববার হাসপাতা’লের বহির্বিভাগের ঔষধ সরবরাহ কেন্দ্র থেকে ৪৮ পাতা ও’ষুধ নিয়ে তিনি বাড়ি যাচ্ছিলেন। এ সময় পথে স্থানীয়রা তাকে ধরে ফে’লে। পরে তাকে এত ও’ষুধ কোথায় ও কেন নিয়ে যাচ্ছে প্রশ্ন করলে কোনো উত্তর না দিয়ে দ্রু’ত আবার হাসপাতা’লে চলে যান। পরে স্থানীয়রা পিছু পিছু হাসপাতা’লের ওই কক্ষে ছুটে যান। এ সময় স্থানীয়রা তার হাতে থাকা বক্স ও ইউনিফর্মের পকেট থেকে বিভিন্ন ধরনের ৪৮ পাতা ও’ষুধ বের করে।

এ ব্যাপারে অ’ভিযু’ক্ত নার্স তৃ’প্তি রানী রায় জানান, তিনি এসব ও’ষুধ স’রকারি নিয়ম অনুযায়ী টিকে’টের মাধ্যমে তার আত্মীয়-স্বজনদের জন্য নিয়ে যাচ্ছিলেন। প্রয়োজনে মাঝে মাঝেই এভাবে ও’ষুধ নিয়ে যান‌ বলে স্বীকার করেন তিনি। বোরহানউদ্দিন উপজে’লা স্বা’স্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মক’র্তা তপতি চৌধুরী জানান, বি’ষয়টি আমি লোকের মুখে শুনেছি। তিনি যদি ও’ষুধ নিয়ে থাকেন তাহলে তার বি’রুদ্ধে ঊর্ধ্বতন কর্মক’র্তাকে জানানো হবে।

চিকিৎসক, নার্স
বোরহানউদ্দিন উপজে’লা নির্বাহী অফিসার মো. সাইফুর রহমান জানান, বি’ষয়টি আমি শোনার সাথে সাথে উপজে’লা স্বা’স্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মক’র্তা তপতি চৌধুরীকে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশে দিয়েছি।

ভোলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্ম’দ ওয়াজেদ আলী জানান, এ বি’ষয়ে লিখিত অ’ভিযোগ পেলে ত’দন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এছাড়া একজন রো’গী বা নার্স একস’ঙ্গে ৪৮ পাতা ও’ষুধ নিতে পারেন কি-না জানতে চাইলে তিনি জবাবে বলেন, নিতে পারেন না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here