রফিককে ভা’রতে থেকে যাওয়ার প্রস্তাব গাঙ্গু’লির

0
150

সৌরভ গাঙ্গু’লি এখন বিসিসিআইয়ের সভাপতি। খেলোয়াড়ি জীবনে যখন ছিলেন, তখন থেকেই তার সাথে অন্তরঙ্গ স’ম্পর্ক বাংলাদেশের কিংবদন্তি স্পিনার মোহাম্ম’দ রফিকের। রফিককে ভা’রতে বসবাসের অনুরোধও জানিয়েছিলেন সৌরভ।

খেলোয়াড়ি জীবনের ইতি টানার পর বাংলাদেশে রফিকের কাজের ক্ষেত্র সরু হয়ে পড়েছে। তবে ভা’রতে সৌরভের একাডেমিতে গিয়ে ঠিকই দীক্ষা দিয়ে আসেন রফিক।

দুই দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ স’ম্পর্কের স্মা’রক হিসেবে আয়োজন করেন টুর্নামেন্ট। কলকাতার সাথে রফিকের এত খাতিরের জেরেই সৌরভ রফিককে বলেছিলেন- তুই আমা’র দেশে থেকে যা।

রফিক জানান, ‘দুই বছর আগে রংপুর রাইডার্সের একটা দল নিয়ে ভা’রতে গিয়েছিলাম। সৌরভের জন্য রংপুর রাইডার্সের জার্সি নিয়ে গিয়েছিলাম। অনেক দিনই সেখানে ছিলেন।

তখন সৌরভ বলল, তুই এত কিছু করতেছিস, তুই আমা’র দেশেই থাকতে পারিস। তুই যেহেতু এত আসা-যাওয়া করিস। আমি বললাম, আসি তো, একই তো দেশ। কলকাতা আর বাংলাদেশ তো একই।’

রফিক জানান সৌরভের একাডেমির কথাও, যেখানে বাংলাদেশও যু’ক্ত হয় একটি টুর্নামেন্টের মাধ্যমে। তিনি বলেন, ‘সৌরভের একাডেমিতে আমি প্রায়ই যাই। ওখানে টুর্নামেন্ট ছাড়ি, বাংলাদেশ থেকেও ৩-৪টা দল পাঠাই।

প্রয়াত ক্রিকেটার আতিক ভাই ওখানে সব গোছাতেন, আমি দেশ থেকে দল পাঠাতাম। ওদের ২-৩টা দল থাকে। দুই দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ স’ম্পর্ক সৃষ্টি হয়। জার্সিতে দুই দেশের পতাকা থাকে। খুবই সুন্দর টুর্নামেন্ট হয়।’

বিসিবির ছায়াতলে সুযোগ না পেলেও বাংলাদেশের অনেক একাডেমিতে কোচিং করান রফিক। দুই দেশের ক্রিকেট কোচিংয়ের পার্থক্য তাই অস্পষ্ট নয় তার কাছে।

ভা’রতের ক্রিকেট একাডেমির ভালো দিকগুলো তুলে ধরে রফিকের ভাষ্য, ‘ওদের একাডেমি এত গোছানো, চিন্তা করতে পারবেন না। আমি গেলে আগে ওদের স্থানীয় কোচদের সাথে মিটিং করি এরপর কথা বলি। ওদের পরিকল্পনা থাকে প্রথম থেকে একজন ক্রিকেটারকে টেস্টের জন্য গড়ে তুলবে। ওদের রঙিন জার্সি দেখবেন না। প্রথম থেকেই বাচ্চাদের গায়ে সাদা পোশাক। টেস্টের মতই ব্যাটিং-বোলিং শিক্ষা দেয়। ওদের ভবি’ষ্যতের জন্য এটা খুবই ইতিবাচক। একটা সুনির্দিষ্ট সূচি ও পরিকল্পনা মেনে কাজ হয়।’

বিসিসিআই সভাপতি হওয়ার পর ব্যস্ততা বেড়েছে সৌরভের। সামনে আইপিএল, তাই দম ফেলার ফুরসত নেই। রফিকের সাথে সৌরভের যোগাযোগও তাই কমে গেছে। তবে সৌরভের বড় ভাই স্নেহাশিস গাঙ্গু’লির সাথে চিরন্তন সখ্যতা বাংলাদেশের স্পিন কিংবদন্তির, ‘সৌরভ এখন একটু ব্যস্ত। আইপিএল তো আরব আমিরাতে হবে। এটা নিয়ে ব্যস্ত, দিল্লিতে মিটিংয়ে যায়। ওর ভাইয়ের সাথে কথা হয়, গত সপ্তাহেও হয়েছে। সৌরভের সাথে যোগাযোগ খুব কম হয়। সবাই সবার মত ব্যস্ত। এজন্য ওরকম ফোন দেই না।’

গত নভেম্বরে কলকাতার ইডেন গার্ডেনসে বাংলাদেশের বিপক্ষে গো’লাপি বলের টেস্ট খেলেছিল ভা’রত। দুই দেশের ইতিহাসেই এটি প্রথম এবং এখন পর্যন্ত একমাত্র দিবারাত্রির টেস্ট। ঐতিহাসিক সেই টেস্টে আমন্ত্রণ পেয়েছিলেন বাংলাদেশের প্রথম টেস্টের ক্রিকেটাররা, যথারীতি ছিলেন রফিকও। দারুণ সেই আয়োজনের জন্য সৌরভকে ধ’ন্যবাদ জানিয়েছেন রফিক।

তিনি বলেন, ‘অসাধারণ। যারা ওখানে উপস্থিত ছিল সবার জীবনে ইতিহাস হয়ে থাকবে। এত সুন্দর আয়োজন। আমাদের প্রথম টেস্টের খেলোয়াড়দের আমন্ত্রণ জানানোয় সৌরভকে ধ’ন্যবাদ জানাই। আমাদের এত সুবিধাদি দিয়েছে। কলকাতা না হয়ে অন্য শহরে হলে এমন হত না। ওদের সিনিয়র খেলোয়াড় যারা ছিল, কপিল দেব, আজহারউদ্দিন ওরা গ’লা জড়িয়ে বলত- এতদিন পর দেখা, খুব ভালো লাগে। গো’লাপি বলের টেস্টের জন্যই এই মি’লনমেলা হয়েছে, অসাধারণ।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here