চেকপোস্টের পরিবর্তে নয়া কৌশল পু’লিশের

0
110

ফুলপুরে প্রাইভেট পড়তে গিয়ে এক স্কুলছাত্রীর স’র্বনাশ হয়েছে।বৃ’দ্ধ শিক্ষক তার স’ঙ্গে কৌ’শলে অ’বৈধ স’ম্পর্ক গড়ে তুলে। ওই ছাত্রী তার কাছে যেতে না চাইলে বই খাতা অাটকে রেখে তার কাছে যেতে বা’ধ্য করা হতো।একপর্যায়ে বি’ষয়টি অপর এক ছাত্র টের পায়।এসময় ওই শিক্ষক নিজের

দোষ ঢাকতে ছাত্রীকে ভ’য়ভীতি দেখিয়ে ওই ছাত্রের স’ঙ্গে শা’রীরিক স’ম্পর্ক গড়ে তোলার ব্যবস্থা করে দেয়। এভাবে ওই ছাত্রীর স’ঙ্গে ছাত্র-শিক্ষকের অ’বৈধ স’ম্পর্ক চলতে থাকে। এভাবে ওই ছাত্রী অ’ন্তঃস’ত্ত্বা হয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে ওই ছাত্রী অ’বৈধ স’ন্তান প্রসব করলে এনিয়ে তো’লপাড় শুরু হয়।বর্তমানে ওই ছাত্রী ফুলপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছেন।

এ ঘ’টনায় পু’লিশ কি’শোরীর প্রাইভেট শিক্ষক ও ছাত্রকে গ্রে’ফতার করে জে’লহাজতে পাঠিয়েছে। রোববার দুপুরে ওই ছাত্রী নিজ গৃহে কন্যা স’ন্তান প্রসব করে। পরদিন শি’শু অ’সুস্থ্য হয়ে গেলে চিকিৎসার জন্য ফুলপুর হা’সপতালে ভর্তি করা হয়।জানা গেছে, পৌরসভার

সাহাপুর গ্রামের ৭০ বছর ব’য়সী শিক্ষক মোসলেম উদ্দিনের কাছে সে প্রাইভেট পড়ত। সে তৃতীয় শ্রেণী থেকে মোসলেম উদ্দিনের কাছে প্রাইভেট পড়ে আসছিল। দু’বছর আগে থেকে শিক্ষক মোসলেম উদ্দিন তার স’ঙ্গে কৌশলে অ’নৈতিক স’ম্পর্ক স্থাপন করে।বি’ষয়টি তার স’ঙ্গে
পাইভেট পড়তে আসা একই গ্রামের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্র পরিমল চন্দ্র জোয়ারদারের পুত্র সুজন জোয়ারদার টের পায়। ঘ’টনা ধা.মাচা’পা দিতে মোসলেম উদ্দিন ভ’য়ভীতি দেখিয়ে ওই ছাত্রীর সাথে সুজনকে অ’বৈধ মে’লামেশার সুযোগ করে দেয়।এক পর্যায়ে স্কুলছাত্রী অ’ন্তঃস’ত্ত্বা হয়ে পড়ে।

এরপর থেকে ছাত্র-শিক্ষক উভ’য়ের সাথেই তার অ’বৈধ মে’লামেশা চলে আসছিল। স’ন্তান প্রসবের খবর পেয়ে পু’লিশ সাহাপুর বাজার থেকে শিক্ষক মোসলেম উদ্দিন ও ছাত্র সুজন জোয়ারদারকে গ্রে’ফতার করে পরদিন কোর্ট হাজতে পাঠিয়েছেন। এ ঘ’টনায় কি’শোরীর পিতা বাদি হয়ে ফুলপুর থানায় একটি মা’মলা দা’য়ের করেছেন।

ওই ছাত্রীর মা বলেন, প্রাইভেট শিক্ষক বিশ্বাস ভঙ্গ করে আমার মে’য়ের স’র্বনাশ করেছে। তার দাদি বলেন, স’ন্তান প্রসবের আগ মুহুর্ত পর্যন্ত অ’ন্তঃস’ত্ত্বার বি’ষয়টি আমরা টের পাইনি। সে মোসলেমের কাছে প্রাইভেট পড়তে যেতে চাইতনা। আর না গেলেই মোসলেম এসে তার বই খাতা নিয়ে আ’টক রেখে যেতে বা’ধ্য করত।ফুলপুর থানার থানার ওসি মাজহারুল হক বলেন ডিএনএ টেষ্টের মাধ্যমে পিতা স’নাক্ত করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here