না’রী দিয়ে প্র’তারণা, টাকা না দিলেই ন’গ্ন ছবি ফাঁ’স!

0
106

শুরুটা হয় মোবাইলে পরিচয় দিয়ে, তারপর প্রেম। এরপর ফেলা হয় টাকার ফাঁ’দে। এমনই ঘ’টনা ঘটছে ঝিনাইদহ শহরের পাড়ায় পাড়ায়।ব্যভিচারের পাশাপাশি যুবতী না’রী দিয়ে প্র’তারণার ফাঁদ পাতা হচ্ছে। মোবাইলে প্রেমের অভিনয় করে টাকা দাবি করা হচ্ছে। টাকা না দিলে যুবতীর স’ঙ্গে ন’গ্ন করে ছবি উঠিয়ে ফাঁ’স করার হু’মকি দেয়া হচ্ছে।

এ রকম একটি চ’ক্রের ৭ সদস্যকে পু’লিশ গ্রে’প্তার করেছে। এরমধ্যে রয়েছে ৫ জন যুবতী না’রী। গ্রে’প্তারকৃতরা হলেন, শৈলকূপা উপজে’লার বাহির রয়েরা গ্রামের নিজাম উদ্দিনের মে’য়ে তন্বী (২৫), ঝিনাইদহ সদর উপজে’লার নলডাঙ্গা ইউনিয়নের আড়মুখী গ্রামের আলাউদ্দিনের মে’য়ে সুমী (২৪), নলডাঙ্গা ইউনিয়নের নারায়ণপুর গ্রামের প্রফুল্ল কুমারের ছেলে শ্রী প্রদ্যুৎ কুমার বিশ্বাস (৩০),

ঝিনাইদহ সদর উপজে’লার মহারাজপুর ইউনিয়নের মায়াধরপুর গ্রামের আফান উদ্দিনের ছেলে রাসেল হোসেন (২৫), কুমড়াবাড়িয়া ইউনিয়নের লেবুতলা গ্রামের খেলাফত মালিথার মে’য়ে ইতি খাতুন (২২), ঝিনাইদহ পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের ছোট কামারকুণ্ডু গ্রামের সাগরের স্ত্রী লাবনী খাতুন (২০) ও নলডাঙ্গা ইউনিয়নের নলডাঙ্গা গ্রামের মৃ’ত হারুনের স্ত্রী সোহা’না (২৫)।

জানা গেছে, ঝিনাইদহ সদর উপজে’লার হাট গোপালপুর গ্রামের সমশের মণ্ডলের ছেলে আনিচ মণ্ডলের স’ঙ্গে মোবাইলে পরিচয়ের সুত্র ধরে শৈলকূপা উপজে’লার বাহির রয়েরা গ্রামের নিজাম উদ্দিনের মে’য়ে তন্বীর সম্প’র্ক গড়ে ওঠে। সেই মোতাবেক তন্বী আনিসের নিকট অ’সুস্থতার কথা বলে ৫ হাজার টাকা চাই।

আনিচ তাকে ২ হাজার টাকা দিতে রাজি হয়। তন্বী আনিচকে শহরের ব্যাপারীপাড়ায় আড়মুখী গ্রামের আলাউদ্দিনের মে’য়ে সুমীর ভাড়া বাড়িতে আসতে বলে। আনিচ ৩১ শে জুলাই বিকালে ২ হাজার টাকা নিয়ে তন্বীর কথামতো সুমীর ভাড়া বাসায় গিয়ে দরজায় নক করে। ভে’তর থেকে সুমী দরজা খুলে দিলে আনিচ এবং তন্বী বাসার ওয়েটিং রুমে বসে। এ সময় নলডাঙ্গা ইউনিয়নের নারায়ণপুর গ্রামের প্রফুল্ল কুমারের ছেলে শ্রী প্রদ্যুৎ কুমার বিশ্বাস সুমীর পাশের রুম থেকে বেরিয়ে এসে আনিচকে ফাঁ’দে ফে’লে দেয়। দাবি করে ৫০ হাজার টাকা।

টাকা না দিলে তন্বীর স’ঙ্গে আনিচের উ’লঙ্গ ছবি তুলে ইয়াবা দিয়ে পু’লিশে ধরিয়ে দেবার হু’মকি দেয়। এ কথা বলার স’ঙ্গে স’ঙ্গে তন্বী কাপড় খুলে অর্ধ ন’গ্ন হয়ে পড়ে। আনিচ তাদেরকে টাকা দিতে অস্বীকার করলে তন্বী, সুমী ও শ্রী প্রদ্যুৎ কুমার বিশ্বাস তাকে মা’রধর করে। আনিচ বা’ধ্য হয়ে তার মায়ের কাছে ফোন করে ১৫ হাজার টাকা বিকাশ করতে বলে। আনিচের মা হাটগোপালপুর বাজারে এসে তন্বীর বিকাশ নম্বরে ১৫ হাজার টাকা পাঠিয়ে দেয়।

স্থানীয় লোকজন তন্বী, সুমী ও শ্রী প্রদ্যুৎ কুমারের কবল হতে আনিচকে উ’দ্ধার করে। ঘ’টনাটি পু’লিশ জানতে পেরে ৩ জনকে গ্রে’প্তার করে। এদিকে গত রোববার রাত ৯টার দিকে ঝিনাইদহ শহরের আলহেলা পাড়া থেকে রাসেল হোসেন, ইতি খাতুন ও লাবনী খাতুনকে গ্রে’প্তার করে। তারা বাসা ভাড়া নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে অ’নৈতিক কাজ চা’লিয়ে আসছিল।

এভাবে শহরের বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় চলছে অসামাজিক কর্মকাণ্ড। যার বেশির ভাগ পু’লিশের অগোচরে চলছে। এক শ্রেণির টাউট বাটপাড় ও প্র’তারক শ্রেণির মানুষ এসব অ’নৈতিক কাজের স’ঙ্গে জ’ড়িত থাকলেও তারা থাকছে ধরাছোয়ার বাইরে। ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, এক শ্রেণীর মানুষ যুব সমাজ কে ধ্বং’সের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেন এদের বি’রুদ্ধে অ’ভিযান অব্যহত থাকবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here