করো’নায় পড়াশোনা ছেড়ে মাদরাসা ছাত্র এখন অটোচালক

0
100

স্বপ্ন ছিল ছে’লে-মে’য়ে দুটিকে লেখাপাড়া শিখিয়ে মানুষের মতো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলবো। আজ সেই স্বপ্ন ধুলায় মিশে শেষ হয়ে যাওয়ার পথে। করো’না নামক অদৃশ্য রো’গে মানুষ আর আমা’র চায়ের দোকানে আসে না। তাই সংসার চালাতে আর পারছি না।

স’রকারি অনুদান এক দিন ১০ কেজি চাল ২ কেজি আলু পেয়েছি। আর ভাগ্যে জোটেনি। এ অবস্থায় বা’ধ্য হয়েই পড়াশোনা ছেড়ে ছে’লেকে নামাতে হয়েছে সংসার চা’লানোর জন্য অর্থ রোজগারে। আমা’র ছে’লেটি এখন ইজিবাইক চালক। কথাগুলো বলার সময়ে ঘাড়ে থাকা গামছা দিয়ে বারবার চোখ মুচছিলেন এক স্বপ্নপূজারি পিতা।

স্বপ্নপূজারি ব্যক্তিটি হলেন ঝিনাইদহ জে’লার কোটচাঁদপুর উপজে’লার সাবদালপুর ইউনিয়নের বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের পঙ্গু চা বিক্রেতা নজরুল ইস’লাম। নজরুল বলেন, দুই ছে’লে-মে’য়ে নিয়ে ভালোই চলছিলো সংসার। বড় ছে’লে মোস্তফা কামাল কোটচাঁদপুর উপজে’লার সাবদালপুর দারুল উলুম আলিম মাদরাসার শেষ বর্ষের ছাত্র। আর মে’য়ে স্বর্ণালী একই মাদরাসার সপ্তম শ্রেণির ছা’ত্রী।

ছে’লে-মে’য়ে দুটি আমা’র ভীষণ মেধাবী। আমি একজন পঙ্গু মানুষ। আমা’র একটি পা নেই। তবু অভাবের সংসার হলেও কারও কাছে কখনো হাত পাতিনি।

এ অবস্থায় চায়ের দোকান দিয়ে সংসারের চা’হিদা যতটুকু পেরেছি মিটিয়ে এসেছি এত দিন। শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে প্রতিবেদককে এসব কথা বলছিলেন নজরুল।

ওই এলাকার আওয়ামী লীগ নেতা সিরাজ খান বলেন, চা বিক্রেতা নজরুল ইস’লামের চাষাবাদের জমি ছিল এক বিঘা। আম্পান ঝড়ে তার কাঁচা ঘরবাড়ি চ’রম ক্ষ’তিগ্রস্ত হলে জমিটি বন্ধক দিয়ে বাড়িটি মেরামত করেন। বাকি টাকা দিয়ে চায়ের দোকানে কিছু মালামাল তোলেন।

এরপর আবার করো’নার কবলে পড়ে বেচাকেনা না থাকায় দোকানের পুঁজিও শেষ হয়ে গেছে তাঁর। তার ও’পর রয়েছে দোকানভাড়া।

চা দোকানি নজরুল ইস’লামের ছে’লে মোস্তফা কামাল বলেন, বাবার বড় ইচ্ছে ছিলো আমি লেখাপড়া শেষ করে সংসারের হাল ধরবো। কিন্তু সংসারের অবস্থা দেখে বা’ধ্য হয়েই লোন তুলে একটি ইজিবাইক কিনে ভাড়ায় চালাচ্ছি। করো’নার কারণে যাত্রীও কম।

একদিকে লোনের কিস্তি, অন্যদিকে সংসারের কথা চিন্তা করে প্রচুর খাটতে হয়। সারাদিন খুব পরিশ্রম হয়ে যায়। রাতে বাড়ি ফিরে আর বই নিয়ে বসতে ই’চ্ছা করে না।

মাদরাসার প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন বলেন, মোস্তফা কামাল আমা’র মাদরাসার একজন মেধাবী ছাত্র। আম’রা মাদরাসার বেতনসহ মাদরাসাকেন্দ্রিক সব বি’ষয় আমি দেখবো।

বি’ষয়টি নিয়ে সাবদালপুর ইউপি চেয়ারম্যান এবং ওই ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সভাপতি নয়াব আলী নাছির বলেন, নজরুল ইস’লাম পঙ্গু বিধায় তাকে পঙ্গু ভাতার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আর সাহায্যে তেমন একটা ইউনিয়ন পরিষদে না আসায় আম’রা এসব মানুষকে তেমন কিছু সাহায্য করতে পারি না। তবে আগামীতে দেখব ওই পরিবারের জন্য কিছু করা যায় কি না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here