মি’লনের সময় স্ত্রীর বী’র্যপাত হলে কিভাবে বুঝবেন?

0
341

বেশি পরিমাণ প্রা’ণিজ-ফ্যাট আছে এ ধরনের প্রাকৃতিক খাদ্য আপনার যৌ’নজীবনের উন্নতি ঘটায়। যেমন, খাঁটি দু’ধ, দু’ধের সর, মাখন ইত্যাদি। বেশিরভাগ মানুষই ফ্যাট জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে চায়।

কিন্তু আপনি যদি শ’রীরে সে’ক্স হরমোন তৈরি হওয়ার পরিমাণ বাড়াতে চান তাহলে প্রচুর পরিমাণে ফ্যাট জাতীয় খাবারের দরকার। তবে সগু’লিকে হতে হবে প্রাকৃতিক এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট।
ঝিনুক

আপনার যৌ’নজীবন ময় করে তুলতে ঝিনুক খাদ্য হিসেবে খুবই কার্যকরী। ঝিনুকে খুব বেশি পরিমাণে জিঙ্ক থাকে। জিঙ্ক শুক্রাণুর সংখ্যা বৃ’দ্ধি করে এবং লিবিডো বা যৌ’ন-ই’চ্ছা বাড়ায়। ঝিনুক কাঁচা বা রান্না করে যে অবস্থাতেই খাওয়া হোক, ঝিনুক যৌ’নজীবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।
অ্যাসপারাগাস

আপনার যৌ’ন ই’চ্ছা বাড়াতে চাইলে যেসব প্রাকৃতিক খাবার শ’রীরে হরমোনের ভারসাম্য ঠিক রাখে সেগু’লি খাওয়া উচিত। যৌ’নতার ক্ষেত্রে সবসময় ফি’ট থাকতে চাইলে অ্যাসপারাগাস খেতে শুরু করুন।
কলিজা

অনেকেই কলিজা খেতে একদম পছন্দ করে না। কিন্তু আপনার যৌ’ন জীবনে খাদ্য হিসেবে কলিজার প্রভাব ইতিবাচক। কারণ, কলিজায় প্রচুর পরিমাণে জিঙ্ক থাকে। আর এই জিঙ্ক শ’রীরে টেস্টোস্টেরন হরমোনের মাত্রা বেশি পরিমাণে রাখে।

যথেষ্ট পরিমাণ জিঙ্ক শ’রীরে না থাকলে পিটুইটারি গ্রন্থি থেকে হরমোন নিঃসৃত হয় না। পিটুইটারি গ্রন্থি থেকে যে হরমোন নিঃসৃত হয় তা টেস্টোস্টেরন তৈরি হওয়াতে সাহায্য করে। তাছাড়া জিঙ্ক এর কারণে আরোমেটেস এনজাইম নিঃসৃত হয়। এই এনজাইমটি অতিরিক্ত টেস্টোস্টেরোনকে এস্ট্রোজেনে পরিণত হতে সাহায্য করে। এস্ট্রোজেনও আপনার যৌ’নতার জন্য প্রয়োজনীয় একটি হরমোন।

ডিম সেদ্ধ হোক কিংবা ভাজি, সব ভাবেই ডিম যৌ’ন স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী একটি খাবার। ডিমে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি-৫ ও বি-৬ আছে যা শ’রীরের হরমোনের কার্যক্রম ঠিক রাখে এবং মা’নসিক চা’প কমাতে সাহায্য করে। প্রতিদিনের সকালের নাস্তায় একটি করে ডিম রাখু’ন। এতে আপনার শ’রীর শ’ক্তি পাবে এবং যৌ’ন ক্ষ’মতা (testosterone) বৃ’দ্ধি পাবে।

রঙিন ফল

যৌ’ন স্বাস্থ্য ভালো রাখতে চাইলে প্রতিদিন খাবার তালিকায় রঙিন ফলমূ’ল রাখু’ন। আঙ্গুর, কমলা লেবু, তরমুজ, পিচ ইত্যাদি ফল যৌ’ন ক্ষ’মতা বৃ’দ্ধির জন্য অত্যন্ত উপকারী। ইউনিভার্সিটি অফ টেক্সাসের মেডিকেল টিমের গ’বেষ’ণা অনুযায়ী একজন পু’রুষের প্রতিদিনের খাবার তালিকায় অন্তত ২০০ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি থাকলে তার স্পার্মের কোয়ালিটি উন্নত হয়।

আবার টেক্সাসের A&M ইউনিভার্সিটির মতে তরমুজ শ’রীরে যৌ’ন উদ্দীপনা বৃ’দ্ধি করে। তারা যৌ’ন উদ্দীপক ও’ষুধ ভায়াগ্রার সাথে তরমুজের তুলনা করেছেন।

মিষ্টি আলু

মিষ্টি আলু শুধু শর্করার ভালো বিকল্পই না, মিষ্টি আলু খুব ভালো ধরনের একটি ‘সে’ক্স’ ফুড। আপনার শ’রীর কোনো সবজিতে বিটা-ক্যারোটিন পেলে তা ভিটামিন-এ তে রূপান্তরিত করে। এই ভিটামিন-এ না’রীদের যো’নি এবং ইউটেরাসের আকার ভালো রাখে। তাছাড়া এটা সে’ক্স হরমোন তৈরিতেও সহায়তা করে।
কফি

কফি আপনার যৌ’ন ই’চ্ছা বাড়ানোতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। কফিতে যে ক্যাফেইন থাকে তা আপনার যৌ’নতার মুড ঠিক রাখে।

ডার্ক চকোলেট
ডার্ক চকোলেটে আছে ফেনিলেথ্যালামাইন নামক একটি উপাদান যা শ’রীরে বাড়তি যৌ’ন উদ্দীপনা তৈরী করে। গ’বেষ’ণায় জানা গেছে যে ডার্ক চকোলেট খেলে স’ঙ্গীর প্রতি আকর্ষণবোধও বেড়ে যায়।

এছাড়াও ডার্ক চকোলেটে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে। তাই প্রতিদিন শতকরা ৭০ ভাগ কোকোযুক্ত ডার্ক চকোলেটের ২ ইঞ্চির একটি টুকরো খেয়ে নিন। মাত্র ১০০ ক্যালরী আছে এই আকৃতির একটি টুকরোতে যা আপনার যৌ’ন স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী।

ট্রাফল (এক ধরনের ছত্রাক)
ট্রাফলে পু’রুষের যৌ’ন হরমোনের মত একধরনের উপাদান থাকে। কিছু কিছু খাবারে ট্রাফলের এই বিশেষ কেমিক্যাল ব্যবহার করা হয়। যার ফলে, না’রীদের পু’রুষের প্রতি লিবিডো বা যৌ’ন আকাঙ্ক্ষা বৃ’দ্ধি পায়। যেমন ম্যাশড পটেটোতে ট্রাফলের ব্যবহার করা হয়।

জয়ফল

ভারতীয় গবেষকদের মতে, জয়ফল থেকে এক ধরনের কামোদ্দীপক যৌগ নিঃসৃত হয়। সাধারণভাবে এই যৌগটি স্নায়ুর কোষ উদ্দীপিত করে এবং র’ক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। ফলে আপনার যৌ’ন ই’চ্ছা বৃ’দ্ধি পায়। আপনি কফির সাথে মিশিয়ে জয়ফল খেতে পারেন, তাহলে দুইটির কাজ একত্রে পাওয়া সম্ভব।

তৈলাক্ত মাছ

তৈলাক্ত মাছে রয়েছে ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড যা সুস্থ যৌ’ন জীবনের জন্য অত্যন্ত উপকারী। সামুদ্রিক মাছেও প্রচুর পরিমাণে ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড থাকে। ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড DHA O EPA শ’রীরে ডোপামিন বাড়িয়ে দেয় এবং মস্তিষ্কে উদ্দীপনা জাগিয়ে তোলে।

তৈলাক্ত ও সামুদ্রিক মাছ খেলে শ’রীরের র’ক্ত চলাচল বৃ’দ্ধি পায় এবং গ্রোথ হরমোনের নিঃসরন হয়। ফলে যৌ’ন স্বাস্থ্য ভালো থাকে এবং যৌ’ন ক্ষ’মতা বৃ’দ্ধি পায়।
গরুর মাংস

কলিজার মত গরুর মাংসেও প্রচুর জিঙ্ক থাকে। তাই আপনি যৌ’ন জীবনকে আরো ময় করতে কম ফ্যাটযুক্ত গরুর মাংস খান। যেমন গরুর কাঁধের মাংসে, রানের মাংসে কম ফ্যাট থাকে এবং জিঙ্ক বেশি থাকে। এইসব জায়গার মাংসে প্রতি ১০০ গ্রামে ১০ মিলিগ্রাম জিঙ্ক থাকে।
অ্যাভোকাডো

অ্যাভোকাডোকে এর আকৃতির কারণে একে না’রী ফল হিসেবে দেখা হয়ে থাকে। তবে শুধু এর আকৃতিই আ’কর্ষণী’য় না, এতে প্রচুর ভিটামিন বি-সিক্স এবং পটাসিয়াম থাকে। এর ফলে এটা খেলে আপনার যৌ’ন ই’চ্ছা এবংযৌ’ন সামর্থ্য বৃ’দ্ধি পায়। এই ফলের এই নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্যটির কারণে একে স্প্যানিশ প্রিস্টরা নি’ষিদ্ধ করেছিল।
ওটমীল

ওটমিলে প্রচুর পরিমাণে ফাইটোস্ট্রোজেন থাকে। যেসব দানাজাতীয় শশ্যে আবরণ থাকে তাদের মধ্যে এই গুণটি রয়েছে। যেমন গম, চাল, রাই ইত্যাদি। ফাইটোস্ট্রজেন আপনার যৌ’ন জীবনের জন্য খুবই কার্যকরী।
পালং শাক ও অন্যান্য সবজি

পালং শাকে আছে প্রচুর পরিমাণ ম্যাগনেসিয়াম। ম্যাগনেসিয়াম শ’রীরে র’ক্ত চলাচল বৃ’দ্ধি করে। জাপানের গবেষকদের মতে শ’রীরে র’ক্ত চলাচল বাড়লে যৌ’ন উদ্দীপনাও বাড়ে। পালং শাক ও অন্যান্য বিভিন্ন রকম শাক,ব্রকলি, লেটুস, ফুলকপি, বাঁ’ধাকপি এগুলোতে রয়েছে ফলেট, ভিটামিন বি সহ অন্যান্য অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এগুলো সুস্থ যৌ’ন জীবনের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় কিছু উপাদান।
বাদাম ও বিভিন্ন বী’জ

কুমড়োর বী’জ, সূর্যমূখীর বী’জ, চিনা বাদাম, কাজু বাদাম, পেস্তা বাদাম ইত্যাদিতে শ’রীরের জন্য প্রয়োজনীয় মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট আছে এবং এগুলো শ’রীরে উপকারী কোলেস্টেরল তৈরী করে। সে’ক্স হরমোন গুলো ঠিক মতো কাজ করার জন্য এই কোলেস্টেরল অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। তাই প্রতিদিন অল্প করে হলেও বাদাম খাওয়ার চেষ্টা করুন। এতে আপনার যৌ’ন স্বাস্থ্য ভালো থাকবে।

শিমের বীচিতে প্রচুর ফাইটোস্ট্রোজেন থাকে। এটা আপনার যৌ’ন ই’চ্ছা এবং যৌ’ন সামর্থ্য বাড়ায়। জাপানিরা যৌ’ন ই’চ্ছা বাড়ানোর জন্য খাবারে প্রচুর শিমের বীচি ব্যবহার করে থাকে। চীনা বাদামে প্রচুর জিঙ্ক থাকে। এই জিঙ্ক শুক্রাণুর সংখ্যা বাড়ায় এবং শ’ক্তিশালী শুক্রাণু তৈরি করে। জিঙ্ক কম থাকলে শ’রীরে শতকরা ৩০ ভাগ কম বী’র্য তৈরি হয়।

যারা খাদ্যের মাধ্যমে শ’রীরে কম জিঙ্ক গ্রহণ করে তাদের বী’র্য এবং টেস্টোস্টেরনের ঘনত্ব দুটিই কমে যায়। ওটমিল এবং কুমড়ার বীচির মত সূর্যমুখীর বী’জ হরমোন বাড়াতে সাহায্য করে। ফলে আপনার যৌ’ন আকাঙ্ক্ষাও বাড়ে। সূর্যমূখীর বী’জে যে তেল থাকে তা এই কাজটি করে। কুমড়ার বীচি জিঙ্ক-এর অন্যতম সেরা প্রাকৃতিক উৎস। এই জিঙ্ক টেস্টোস্টেরোনের (Testosterone)মাত্রা বাড়ায়। আপনার যৌ’ন ই’চ্ছা বাড়ানোতে কুমড়ার বীচির কার্যকারিতা অনেক।

মেয়েদের বী’র্য বলে কিছু নেই। এক প্রকার তরল নির্গত হয় (ছেলেদেরও হয়)।
মেয়েদের বেলায় একে ভেজিনাল ফ্লুইড বলে।

এটা নিঃসরণ বন্ধ হলেই বুঝবেন আপনার স্ত্রীর অ’র্গাজম হয়ে গেছে।
এখন কীভাবে বুঝবেন যে ফ্লুইড নির্গমন বন্ধ হয়েছে তার কোনো নিয়ম নেই,

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here