বাতের ব্য’থা থেকে মুক্তি মিলবে আম পাতায়, জেনে নিন পদ্ধতি !!

0
173

আম সবারই প্রিয় ফল। এর স্বাস্থ্য উপকারিতাও বহুল। তাইতো বলা হয় ফলের রাজা আম। তবে এর পাতাও কিন্তু ফেলনা নয়। এতে রয়েছে ভিটামিন, এনজাইম, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং খনিজ উপাদানসমূহ।

আম পাতায় মেঞ্জিফিরিন নামক সক্রিয় উপাদান থাকে যার অপরিমেয় স্বাস্থ্য উপকারিতা আছে। আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে বিভিন্ন রো’গ নিরাময়ে আম পাতার ব্যবহার বর্ণনা করা হয়েছে। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক আম পাতার বিভিন্ন স্বাস্থ্যগুণ-

* খেতে বসলেই কি হেঁচকি আসে? তাহলে নিয়মিত কয়েকটি আম পাতা পু’ড়িয়ে এর ধোঁয়া গ্রহণ বরুন। হেঁচকি সমস্যা দূর হবে। সেই সঙ্গে গ’লা ব্য’থাও দূর হবে।

* আমের পাতা ভিজিয়ে সেই পানি দিয়ে গোসল করলে উ’দ্বেগজনিত সমস্যা দূর হয়। আম পাতা ভেজানো পানি দিয়ে গোসলে শ’রীর ও মস্তিষ্কের ভেতরে এমন কিছু পরিবর্তন হয় যার প্রভাবে ভ’য় ও রাগের মতো সমস্যা নিয়’ন্ত্রণে চলে আসে।

* আমপাতার সাহায্যে পোড়ার ক্ষ’ত নিরাময় করা সম্ভব। কিছু আম পাতা পু’ড়িয়ে ছাই করে নিয়ে তা পোড়া স্থানে দিলেই ক্ষ’ত শুকিয়ে দাগ মিশে যাবে।

* আম পাতা শুকিয়ে গুঁড়া করে নিন। তারপর সেই গুঁড়া এক গ্লাস পানিতে মিশিয়ে প্রতিদিন সকালে খালি পেটে পান করলে কিডনির পাথর প্রস্রাবের মাধ্যমে বেরিয়ে যাবে।

* র’ক্তনালিকে প্রসারিত করার পাশপাশি ব্লাড প্রেসারকে নিয়’ন্ত্রণে রাখতে আম পাতার গুরুত্ব অনেক। তাই প্রেসারের রোগীদের প্রতিদিন এক কাপ আম পাতার চা খাওয়ার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।

* আঁচিল নিরাময়ে পরিপক্ক আম পাতা পুড়িয়ে কালো করে গুঁড়া করে নিন। সামান্য পানি মিশিয়ে পেস্টের মত তৈরি করে আঁচিলের উপরে লাগালে আঁচিল দূর হবে।

* প্রতিদিন আম পাতা দিয়ে তৈরি চা খেলে শ্বাসজনিত সমস্যা দূর হয়। বিশেষ করে যারা ব্রঙ্কাইটিস ও অ্যাজমা সমস্যায় যারা ভুগছেন তাদের এই ঘরোয়া চিকিৎসাটি দারুণ কাজে আসবে।

* গেঁটে বাত নিয়’ন্ত্রণে অত্যন্ত কার্যকরী আম পাতা। কিছু কচি আম পাতা পানিতে ফুটিয়ে নিন যতক্ষণ না পাতার বর্ণ হলুদ হয়ে যায়। উপকারিতা পাওয়ার জন্য প্রতিদিন পান করুন এই পানীয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here