হঠাৎ ক’রোনা ভাই’রাসের ঔষধ তৈরি করে বিশ্বকে চমকে দিলো সৌদি আরব

0
3750

ক’রোনা ভাই’রাসের তান্ডবে যখন পুরো বিশ্বই বিদ্ধস্ত। এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশের চিকিৎসক ও বিজ্ঞানীরা যখন ক’রোনার প্রতিষেধক আবিস্কারের কাজে ব্যস্ত।

ঠিক তখনই ক’রোনা ভাই’রাস নিয়ে বড় একটি সুখবর দিয়েছে সৌদি আরব। ম’দিনার তাইবাহ ইউনিভার্সিটির একদল গবেষক দাবি করেছেন হাদিস অনুসারে কালোজিরা ব্যবহার করে ক’রোনাভা’ইরাসে আ’ক্রান্তদের সম্পূর্ণ সুস্থ করা সম্ভব।

তাদের গ’বেষ’ণাপত্রটি সম্প্রতি মা’র্কিন জার্নাল ‘পাবলিক হেলথ রিসার্চ-এ প্রকাশিত হয়েছে বলে জানিয়েছে মু’সলিম ইঙ্ক নামে একটি সাময়িকী।

এর প্রতিবেদনে বলা হয়- হযরত আয়েশা সিদ্দিকা (রা.) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, কালোজিরা হলো সর্বরো’গ থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার ও’ষুধ। শুধু বি’ষ ছাড়া। আয়েশা (রা.) জিজ্ঞেস করেন, বি’ষ কী? রাসূল (সা.) বলেছেন, মৃ’ত্যু। (সহীহ বুখারি-৫৩৬৩)

গবেষকরা জানিয়েছেন, ক’রোনা আ’ক্রান্ত রো’গীকে দুই গ্রাম কালোজিরা, এক গ্রাম চামেলি ফুল, এক চামচ মধু একসঙ্গে ভালোভাবে মিশিয়ে খাওয়াতে হবে।

এটি খাওয়ার পর জুস কিংবা একটি কমলা খেতে দেয়া যেতে পারে। তবে লেবু খেলে বেশি ভালো। ক’রোনামুক্ত না হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন এভাবে খেতে হবে।

সৌদির গবেষক দলটি বলছে, রো’গীর ক’রোনা শনাক্ত হওয়ার প্রথম সপ্তাহে দিনে পাঁচবার উপরোক্ত নিয়ম অনুসারে কালোজিরা খাওয়াতে হবে। আর সুস্থ হয়ে ওঠার পর ম’হামা’রি শেষ না হওয়া পর্যন্ত দিনে একবার করে খেতে হবে সেগুলো।

রো’গীর কাশি বেশি এবং শ্বাসক’ষ্ট হলে কালোজিরা ও লবঙ্গ মেশানো পানি গরম করে নাক দিয়ে বাষ্প টেনে নেয়া যেতে পারে।

কালোজিরা-চামেলিও পানিতে গরম করে বাষ্প নাক দিয়ে টানতে পারেন।গবেষকরা বলছেন, অক্সিজেনের অভাব হলে এক চামচ কালোজিরা, এক চামচ চামেলি এবং এক কাপ পানি একটি পাত্রে নিয়ে হালকা গরম করতে হবে।

এভাবে দিনে পাঁচ থেকে ছয়বার পানি গরম করে বাষ্প নাক দিয়ে টেনে নিতে হবে।ম’দীনার গবেষক দলটির সদস্য ডা. সালেহ মুহাম্ম’দ বলেন, আল্লাহর রহমতে যেসব ক’রোনা রো’গীদের এই পদ্ধতিতে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে, তাদের সবাই সেরে উঠছেন।

এই পদ্ধতিতে রো’গীদের সেরে উঠতে এক সপ্তাহের বেশি সময় লাগছে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here